পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে রণক্ষেত্র সিরাজগঞ্জ-মানিকগঞ্জ-নেত্রকোণা

পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে রণক্ষেত্র সিরাজগঞ্জ-মানিকগঞ্জ-নেত্রকোণা

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কর্মসূচি ঘিরে কয়েক জেলায় পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে এক কর্মী নিহতের দাবি করছে দলটি। এছাড়া দফায় দফায় সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিনত হয় সিরাজগঞ্জ, মানিকগঞ্জ ও নেত্রকোণা শহর। সকাল থেকে সংঘাতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যসহ আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এসএ জিন্নাহ কবীর বলেন, ‘আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ বাধা দিয়েছে।

পুলিশের লাঠিপেটা ও টিয়ারশেলে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। পুলিশ আমাদের ৩-৪ জনকে ধরে নিয়ে গেছে।’ মানিকগঞ্জ শহরে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। শহরের খালপাড় এলাকায় বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে এই সংঘর্ষ বাঁধে। মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হাফিজুর রহমান সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিএনপির ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে যোগ দিতে শহরের সেওতা এলাকার দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হন বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। পরে সেখান থেকে একটি মিছিল নিয়ে শহরের খালপাড় এলাকায় এলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন নেতা-কর্মীরা।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশের ৩-৪ জন সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানান পুলিশ সুপার। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এস এ জিন্নাহ কবীর বলেন, ‘আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ বাধা দিয়েছে। পুলিশের লাঠিপেটা ও টিয়ারশেলে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। পুলিশ আমাদের ৩-৪ জনকে ধরে নিয়ে গেছে।’ পুলিশ সুপার বলেন, ‘বিএনপির নেতা-কর্মীদের হামলায় ৩-৪ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পুলিশ এখনো শহরের খালপাড় এলাকায় অবস্থান করছে।

----সিরাজগঞ্জে পুলিশ-বিএনপির ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত ১৫----

সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন বলেন, ‘বিএনপি আজ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে তাদের দলীয় কার্যালয়ে কেক কেটে সমাবেশ করে। সমাবেশের শেষ দিকে কিছু কর্মী আমাদের পুলিশ বাহিনীকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে। তখন আমাদের পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিপেটা করে। এতে বিএনপির নেতা-কর্মীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের ওপর হামলা করলে আমাদের কয়েকজন অফিসারসহ বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন।

তখন আমরা টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে শহরের ধানবান্ধি এলাকার দিকে তাদের পাঠিয়ে দেই।’ সিরাজগঞ্জে জেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশ শেষে পুলিশ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় পুলিশ ও বিএনপির কর্মীসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। শহরের ইবি রোডে অবস্থিত দলীয় কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে। সিরাজগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন বলেন, ‘বিএনপি আজ তাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলীয় কার্যালয়ে কেক কেটে সমাবেশ করে।

সমাবেশের শেষের দিকে কিছু কর্মী আমাদের পুলিশ বাহিনীকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে। তখন আমাদের পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিপেটা করে। ‘এতে বিএনপির নেতা-কর্মীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের ওপর হামলা করলে আমাদের কয়েকজন অফিসার ও কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন।

তখন আমরা টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে শহরের ধানবান্ধি এলাকার দিকে তাদের পাঠিয়ে দেই।’ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম বাচ্চু বলেন, ‘আজ আমাদের দলের ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলীয় কার্যালয়ে নেতা-কর্মীদের নিয়ে কেক কাটা শেষে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের সময় যখন সরকারের গুম, খুন ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিরুদ্ধে সবাইকে একযোগে আন্দোলন করার ব্যাপারে বলা হলো, সেই সময় পুলিশ আমাদের ওপর লাঠিপেটা শুরু করে।

‘তখন আমরা নেতা-কর্মীদের শান্ত করাতে থাকলে পুলিশ টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করতে থাকে। পরে আমরা দলীয় কার্যালয় থেকে সরে এসে শহরের ধানবান্ধি এলাকায় অবস্থান নিলে পুলিশ সেখানেও আমাদের ওপর চরাও হয়। এতে আমাদের প্রায় ১০-১২ জন নেতা আহত হয়েছেন।’

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password