অবশেষে পুলিশের লাঠিচার্জে ই-অরেঞ্জ গ্রাহকদের বিক্ষোভ মিছিল ছত্রভঙ্গ

অবশেষে পুলিশের লাঠিচার্জে ই-অরেঞ্জ গ্রাহকদের বিক্ষোভ মিছিল ছত্রভঙ্গ

দেশীয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইওরেঞ্জ.শপের  বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে এসেছে হাজার কোটি টাকার অর্ডার নিয়ে এখন পণ্য ডেলিভারি দিতে নানা অজুহাত।

ইকমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিন, স্বামী মাসুকুর রহমানসহ ৫ জনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। 

গ্রাহকের করা ১১শত কোটি টাকা আত্মসাৎ  মামলায় সোনিয়া মেহজাবিন ও তার স্বামীকে ১৭ আগস্ট ২০২১ কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। মামলায় অভিযুক্ত  বাকিদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

ইকমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জ এর চিফ অপারেটিং অফিসার (সিওও) আমানউল্লাহ‌কে গ্রেফতার করা হয়েছে। ১৮ আগস্ট ২০২১ সন্ধায় রাজধানীর গুলশান এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গুলশান থানা পুলিশ। তার নিকট ২৪টি ক্রেডিট কার্ড, ১৬ লাখ টাকা এবং গাড়ি  ছিল।

দেশী বিদেশী নানান কোম্পানি নামে ডোমেন কিনে প্রতারণা করার অভিযোগ ছিল তার নামে ।

অন্য এক ই-অরেঞ্জ এর আসল হোতা মাষ্টার মাইন্ড ছিলেন শেখ সোহেল রানা ।

তিনি ই-অরেঞ্জ এর সিইও সোনিয়া মেহজাবিন এর ভাই, সম্প্রতি ই-অরেঞ্জ কেলেঙ্কারিতে সামনে আসে পুলিশ সদস্য সোহেল রানার নাম। তিনি বনানী থানার পরিদর্শক।

 ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের কথিত প্রধান পৃষ্ঠপোষক শেখ সোহেল রানা ভারতে পালাতে গিয়ে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে আটক হয়েছেন।ভারতীয় একটি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা সীমান্ত থেকে সোহেল রানা নামের এক বাংলাদেশিকে আটক করেছে বিএসএফ। তিনিই ই-অরেঞ্জের প্রতারণার ঘটনায় আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা শেখ সোহেল রানা 

ই-অরেঞ্জ ভুক্তোগীরা পন্য অথবা টাকা ফেরত পাওয়ার  দাবি নিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে এসে ২৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শান্তিপূর্ণ ভাবে মানববন্ধন করেন ।

এবং তাদের দাবি আদায়ের কথা বলেন সর্বশেষ ই-অরেঞ্জ গ্রাহকরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাব থেকে মৎস্যভবন গেলে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password