দেশের উত্তরাঞ্চলীয় জনপদের শস্য ভাণ্ডার খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে বাংলাদেশের অন্যতম অর্থকরী ফসল ‘সোনালী আঁশ’ নামে খ্যাত পাট চাষে দিন দিন আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা।

চৈত্র থেকে আষাঢ় মাস পাট চাষের উপযুক্ত সময় হলেও বৈরী আবহাওয়া, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, সময়মতো মাঠে পানি না থাকা, বাড়তি খরচসহ নানা সমস্যার কারণে পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন এমটিই বলছেন উপজেলার প্রান্তিক কৃষকেরা। এক সময় এ উপজেলায় ব্যাপক পাটের চাষ হলেও নানা কারণে পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন কৃষক। এক যুগ আগেও এ অঞ্চলে দুই ও তিন ফসলী জমিতে ধান, গম, আলু, সরিষাসহ বিভিন্ন ফসল তোলার পর পাটের চাষাবাদ করা হত। কিন্তু এখন আর এমন চিত্র চোখে পড়ে না।

জানা যায়, ৬০ এর দশকে দেশের খ্যাতিমান পাটক্রয় কেন্দ্র ছিল নওগাঁর আত্রাইয়ে। এক সময় উপজেলার র্যালী বার্দ্রাস নামে বিখ্যাত সেই পাট কেন্দ্রে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা পাইকারেরা পাট ক্রয় করে তা আবার নৌপথে পাঠাতো দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশের বিভিন্ন জুটমিলে। সে সময় সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রতিদিন শত শত টন পাট ক্রয় করা হতো চাষিদের কাছ থেকে। ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তির নিশ্চয়তা নিয়ে প্রান্তিক কৃষকেরাও ঝুঁকে পড়তো ব্যাপকহারে পাটচাষে। আত্রাই থেকে এ পাটগুলো দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা খুলনা, যশোরসহ বিভিন্ন জুটমিলে নৌপথে ও রেল পথে নিয়ে যাওয়া হতো। জনশ্রুতি আছে- আত্রাইয়ের পাট শুধু দেশেই নয় বরং দেশের চাহিদা মিটিয়ে আকাশ পথে উড়োজাহাজ যোগে পাঠানো হতো ইংল্যান্ডে।