নওগাঁর নিয়ামতপুরে সৎ মাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

নওগাঁর নিয়ামতপুরে সৎ মাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলায় রাবেয়া বেগম (৫০) নামে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (৭ জানুয়ারি) দুপুর দেড়টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের গলাইকুড়ি (গবরার মোড়) গ্রামে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে নিহতের সৎ ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত ওই নারী গলাইকুড়ি গ্রামের ইসরাইলের স্ত্রী। এ ঘটনায় আটক হওয়া ছেলের নাম শাহিন হোসেন (১৯)। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হত্যাকাণ্ডের সময় রাবেয়া বেগমের স্বামী ইসরাইল জুমার নামাজ পড়তে মসজিদে যান। দুপুরে শাহিন গোসল করার জন্য পানি তোলার মোটরে সুইচ দিতে গেলে তার মা রাবেয়া বেগম তাকে মোটর চালু করতে নিষেধ করেন। রাবেয়া মোটরের পানিতে গোসল না করে পুকুরে গোসল করতে বলেন ছেলেকে। এ নিয়ে তাদের দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়।

একপর্যায়ে শাহিন বাড়িতে থাকা দা দিয়ে রাবেয়ার মাথায় উপরে আঘাত করে। এতে রাবেয়া বেগম মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় বাড়িতে চিৎকারের শব্দ শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে রাবেয়াকে উদ্ধার করেন। হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয়রা জানতে পারলে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে নিয়ামতপুর থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে এবং শাহিনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

নিয়ামতপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) হ‌ুমায়ূন কবির বলেন, ‘শাহিন নিহত রাবেয়া বেগমের সতীনের ছেলে। কী কারণে সে মাকে হত্যা করছে তা এ মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। তদন্ত করলে জানা যাবে। সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে শাহিনকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’ এ ঘটনায় নিহত রাবেয়া বেগমের বড় ভাই লোকমান আলী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password