ত্বক ও চুলের জন্য গরম পানি

শীতে চুল ও ত্বকের যত্নে গরম পানির ব্যবহারে তাপমাত্রা হতে হবে সঠিক। তবেই মিলবে গরম পানির সুফল।

ধূসর কুয়াশা আর রুক্ষতায় শুধু প্রকৃতিই লাবণ্য হারায় না, শুষ্কতার ছোঁয়া লাগে ত্বক ও চুলেও। তাই শীতে চুল ও ত্বকের যত্নে রাখতে হবে বাড়তি সাবধানতা। এখন গরম পানি উষ্ণতা দিলেও তার তাপমাত্রা হতে হবে সঠিক। তবেই মিলবে গরম পানির সুফল।

গরম পানি আর্দ্রতা কমিয়ে ত্বক ও চুলকে আরও বেশি শুষ্ক করে দেয়। এ ছাড়া অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহারে চুল পড়া বেড়ে যায়, খুশকি হয়, মাথার ফলিকলের (কেশগ্রন্থি) ক্ষতি করে। ফলাফল, সেখানে আর চুল গজায় না। আবার ত্বকে গরম পানি ব্যবহারের ফলে কালো ছোপ ছোপ দাগ হওয়া, বলিরেখা হওয়া ও ত্বক শুষ্ক হয়ে চুলকানির মতো সমস্যা হতে পারে। তবে গরম পানি ব্যবহার করলেও যেন ত্বক ও চুলের ক্ষতি কম হয়, তাই তাপমাত্রা ৯৮.৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট রাখাই ভালো। এ ছাড়া গরম পানির সঙ্গে তেল এবং অন্যান্য উপাদান মিশিয়ে নিলে গরম পানির ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে বলে জানালেন ঢাকার হার্বস আয়ুর্বেদিক স্কিন কেয়ার ক্লিনিকের আয়ুর্বেদিক রূপ বিশেষজ্ঞ আফরিন মৌসুমী।

গরম পানি ব্যবহারের সময়

আড়াই শ গ্রাম নারকেল তেলের সঙ্গে ১০০ মিলিলিটার ল্যাভেন্ডার তেল মিশিয়ে বোতলে রাখা যাবে। প্রতিদিন গোসলের সময় ঝাঁকিয়ে গরম পানিতে ২–৩ ফোঁটা মিশিয়ে নিতে হবে। এটা ত্বক ও চুল—দুইয়েরই রুক্ষতা কমাবে ও আর্দ্রতা ঠিক রাখবে।

গরম পানি ব্যবহারের পর

গরম পানি দিয়ে গোসলের পর ত্বক ভেজা থাকা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার, নারকেল বা জলপাই তেল ব্যবহার করা উচিত। এতে ত্বকের স্বাভাবিক তৈলাক্তভাব ফিরে আসে। পানির তাপমাত্রা বেশি হলে পানি ব্যবহারের পর ময়েশ্চারাইজারের সঙ্গে জলপাই তেল মিশিয়ে নেওয়া ভালো। এতে ত্বকের ক্ষতি কম হবে।

ত্বক ও চুলের জন্য

২০টি গোলাপ বা গাঁদা ফুলের পাপড়ি লবণ পানিতে ধুয়ে নিতে হবে। এবার ২৫০ মিলিলিটার নারকেল তেলে ফুলের পাপড়িগুলো ১৫–২০ মিনিট জ্বাল দিন। ঠান্ডা হলে ছেঁকে সংরক্ষণ করা যাবে। গোসলের পানিতে এই তেলের কয়েক ফোঁটা দিয়ে নিলে শীতেও ত্বক ও চুল থাকবে আর্দ্র।

অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকের জন্য

শীতে শুষ্ক ত্বকে আর্দ্রতা কমে যায়, যাতে রুক্ষতা বাড়ে। তাই এক কাপ কাঁচা হলুদের রস জ্বাল দিয়ে আধা কাপ করে নিতে হবে। এতে এক কাপ নারকেল তেল বা জলপাই তেল মিশিয়ে হালকা তাপে ১৫–২০ মিনিট জ্বাল দিয়ে নিতে হবে। তেল ঠান্ডা হলে এতে ১ চা-চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে সংরক্ষণ করা যাবে। অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকে এই তেল ভালো কাজ করে এবং তৈল গ্রন্থির ক্ষতি রোধ করে।

চুলে গরম পানি

শ্যাম্পু করার আগে কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। এতে মাথার ত্বকের ছিদ্রগুলো খুলে যাবে এবং ভালোভাবে পরিষ্কার হবে। এবার শ্যাম্পু ব্যবহার করে একই পানি দিয়ে চুল পরিষ্কার করতে হবে। শেষে কন্ডিশনার ব্যবহারের পর স্বাভাবিক পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। এতে মাথার ত্বকের ছিদ্রগুলো বন্ধ হয়ে যাবে এবং মাথার কোষের ক্ষতি হবে না।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন