সৌদির জান্নাতুল বাকি মসজিদের সামনে গাড়ি উল্টে প্রাণ গেল ২ বাংলাদেশির

সৌদি আরবের মদিনা থেকে জেদ্দায় আসার পথে গাড়ি উল্টে ২ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। এতে আরও ৩ জন আহত হয়।

শনিবার (২১ ডিসেম্বর) সকালে জেদ্দার জান্নাতুল বাকি মসজিদের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত সাজ্জাদ (২৬) নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাজুরবাগ গ্রামের আবদুল বাতেন মিয়ার ছেলে এবং মেহজাবিন ফাহিম (২৪) বন্দরের সালেহনগর এলাকার ভূঁইয়া বাড়ির (হাজী বাবা সালেহর মাজার সংলগ্ন) সালাউদ্দিনের ছেলে। নিহত দুই জন মামা-ভাগিনা।

আহতরা হলেন- মতিউর রহমান (৩০), হানিফা (২৪) ও সেলিম (৩৪)। নিহত ও আহতরা জেদ্দায় একটি মাছের মার্কেটে ডেলিভারিম্যান হিসেবে কাজ করতেন।

সৌদি প্রবাসী ফারাবি ফাহাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ফাহাদ নিহত ফাহিমের ছোট ভাই। তারা উভয়ে সৌদিতে মাছ বাজারে কাজ করতেন।

ফাহাদ জানা, শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তার বড় ভাই ও মামা মদিনা থেকে জেদ্দায় যাবার পথে মদিনা রোডে গাড়ি উল্টে মারা গেছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান জানান, বাজুরবাগ গ্রামের আব্দুল বাতেন মিয়ার ছেলে সাজ্জাদ, পার্শ্ববর্তী পিছকামতাল গ্রামের মো. হারুজ মিয়ার ছেলে সেলিম, মোস্তফা মেম্বারের ছেলে হানিফা, পার্শ্ববর্তী ধামগড় ইউপি জাঙ্গাল গ্রামের মতিউর রহমান ও বন্দর ভূঁইয়া বাড়ি এলাকার সালাউদ্দিনের মেজবাহ উদ্দিন ফাহিম তিন বছর পূর্বে মাছের আড়তের কাজে সৌদি আরবে যায়। মাছের বকেয়া টাকা আনতে একটি প্রাইভেট কার দিয়ে শুক্রবার জেদ্দা থেকে মদিনা পৌঁছান।

পরে মদিনা থেকে জেদ্দায় ফেরার পথে শুক্রবার (বাংলাদেশ সময়) রাত ১টার দিকে জান্নাতুল বাকি এলাকার মসজিদের সামনে প্রাইভেটকার উল্টে ঘটনাস্থলে সাজ্জাদ ও ফাহিম মারা যায়। এ সময় ওই গাড়িতে থাকা মতিউর রহমান, হানিফা ও সেলিম নামের তিনজন গুরুতর আহত হন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম পূর্বপশ্চিমকে বলেন, সৌদি আরবে গতকাল শুক্রবার সড়ক দূর্ঘটনায় দুই বাংলাদেশী নিহত হয়েছেন বলে মিডিয়ার মাধ্যমে জেনেছি। তবে তারা বন্দর উপজেলার বাসিন্দা কিনা সেটা নিশ্চিত নই।

ওসি বলেন, এখন পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি আমাকে জানানো হয়নি। জানানো হলে থানা পুলিশের যা যা করণীয় আছে আমরা সেটা কররো।

এদিকে প্রবাসে সড়ক দূর্ঘটনায় একই উপজেলার দুইজনের মৃত্যু ও আহত তিনজনের পরিবারের স্বজনদের মধ্যে চলছে শোকের মাতম। স্বজনরা দ্রুত নিহত দুইজনের মরদেহ ফিরিয়ে আনতে সরকারের কাছে দাবি জানান।

অভিবাসি কর্মী উন্নয়ন প্রোগ্রাম (ওকাপ) নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার ফিল্ড অফিসার মো. আমিনুল হক বলেন, প্রবাসে কোন বাংলাদেশির অপমৃত্যু হলে সরকারের পক্ষ থেকে তিন লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়ে থাকে। নিহতের পরিবার যাতে দ্রুত সেই ক্ষতিপূরণ পেতে পারে আমরা ওকাপের পক্ষ থেকে সরকারের সাথে যোগাযোগ করে সহযোগিতা করে থাকি, যাতে সঠিক সময়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা পরিবার পায়। পাশাপাশি লাশ দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারেও আমরা প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে যোগাযোগ করে কাজটি ত্বরান্বিত করতে সহযোগিতা করি।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবার সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ যুবকের পরিবারের সাথে আমরা যোগাযোগ করে তাদের সবরকম সহযোগিতা দেবার চেষ্টা কররো।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন