নওগাঁর মহাদেবপুরে পরকীয়া জেরে কীটনাশক পানে মা-ছেলে আত্মহত্যা

নওগাঁর মহাদেবপুরে পরকীয়া জেরে কীটনাশক পানে মা-ছেলে আত্মহত্যা

নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলায় স্বামীর পরকীয়া প্রেমের বলি পারিবারিক কলোহের জের ধরে কীটনাশক পানে মা ও ছেলে একসাথে আত্মহত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে নওগাঁর মহাদেবপুর কলাবাগান এলাকায় দুঃখজনক এ ঘটনাটি ঘটে।

মৃত সুজন কুমার মন্ডলের বাবা বীরেন মন্ডল জানান, দুপুর ১২টার দিকে তার স্ত্রী তাকে ফোন করে তাড়াতাড়ি বাসায় যেতে বলেন। অন্যথায় তিনি বিষপান করবেন বলে হুমকি দেন। বাসায় ফিরে দেখেন তার স্ত্রী ও ছেলে অসুস্থ। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান তিনি। সেখান থেকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে বেলা পৌনে ৩টার দিকে প্রথমে ছেলের মৃত্যু হয়। আর স্ত্রীকে ৩টার দিকে সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকেও মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, তাদের আরো দু’মেয়ে সন্তান রয়েছে। তাদের অন্যত্র বিয়ে হয়ে গেছে। স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে বীরেন মন্ডল অবৈধভাবে পরকীয়া প্রেমের সাথে জড়িত। এ নিয়ে তাকে এর আগে মোটা অংকের জরিমানাও গুণতে হয়েছে। তারপরও তিনি এ মরণ নেশা মুক্ত হতে পারেননি। তার পরকীয়ার বলি স্ত্রী-ছেলে আত্মহত্যা করেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

পুলিশ জানায়, পারিবারিক কলহের জের ধরে দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা সদরের কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী শ্রী বীরেন্দ্রনাথ মন্ডল বিরেনের স্ত্রী শেফালী রানী মন্ডল (৫০) ও তার ছেলে সুজন কুমার মন্ডল (২৪) তাদের নিজ বাড়িতে কীটনাশক বড়ি সেবন করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদেরকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানে তাদের অবস্থার অবনতি হলে নওগাঁ সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পর্যায়ক্রমে মা ও ছেলে মারা যান।

মহাদেবপুর থানার পরিদর্শক (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ নওগাঁ সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password