ঢাকা কলেজর শিক্ষার্থীদের পাঁশে দাঁড়িয়েছে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

ঢাকা কলেজর শিক্ষার্থীদের পাঁশে দাঁড়িয়েছে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

রাজধানীর নিউমার্কেটে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে চলমান সংঘর্ষের ঘটনায় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা কলেজের প্রতি সংহতি জানিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মোমবাতি প্রজ্বলন করেছেন জবি শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অবকাশ ভবনের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা এ কর্মসূচি পালন করেন। কর্মসূচিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি, প্রেসক্লাব, সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, আবৃত্তি সংসদ, উদীচী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সভাপতি আসফিকুর রহমান আশিক বলেন, ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের ওপর যেভাবে পুলিশ ও ব্যবসায়ীরা হামলা করেছে তা ন্যক্কারজনক। একটি স্বাধীন দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর এমন নগ্ন হামলা কোনোভাবেই কাম্য নয়। আমরা সব সময় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের পাশে আছি। এদিন সংহতি জানিয়েছে কবি নজরুল সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। কলেজের মূল ফটকে এক মানববন্ধনে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের মারধরের ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তারা।

দুপুর ১২টার দিকে কলেজের মূল ফটক থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিলও বের করেন শিক্ষার্থীরা। তারা ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘আমার ভাই মেডিকেলে কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘হামলাকারীর কালো হাত ভেঙে দাও গুড়িয়ে দাও’ এসব স্লোগান দেন। বিক্ষোভ মিছিল শেষে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী শিমুল আহমেদ বলেন, ঢাকা কলেজে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করেছে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীরা। তাদের সাহস হয় কীভাবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের গায়ে হাত তোলার?

পুলিশও রাবার বুলেট ও টিয়ার শেল ছুঁড়েছে। শিক্ষার্থীদের ওপর এমন বর্বর হামলার প্রতিবাদ জানাই। দ্রুত বিচার না হলে আমরা সাত কলেজ পুরো ঢাকা শহর অচল করে দেব। এদিকে ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শিক্ষার্থীরা। ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে মিছিলও করেছেন তারা।

রাজধানীর কলেজগেট (শ্যামলী) থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের বিভিন্ন হল শাখার নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। মিছিলে থাকা শেকৃবির চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আল ইমরান বলেন, ক্রেতাদের অপমানজনক উপহাস, অতিরিক্ত দাম চাওয়া ও নারী ক্রেতাদের বাজে মন্তব্য নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের নতুন সমস্যা নয়।

ক্রেতার বলা দাম পছন্দ না হলেই তারা সাংঘর্ষিক মন্তব্য করে থাকে। আমরা শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা ঢাকা কলেজের যৌক্তিক আন্দোলনের পক্ষে আছে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ঢাকা কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর এই ন্যাক্কারজনক হামলায় আমরা শেকৃবি ছাত্রলীগের নেতারা ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীরা তো ভাই ভাই। সেই হিসেবে ঢাকা কলেজের হামলায় শেকৃবির সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছে। চলমান সংঘর্ষের ঘটনায় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন সরকারি আলিয়া মাদরাসার শিক্ষার্থীরা। আজ দুপুরে রাজধানীর বকশিবাজার থেকে মাদরাসার শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নেন। এ সময় তাদের ‘ঢাকা কলেজ, ঢাকা আলিয়া, ভাই ভাই... আমরা যাচ্ছি তোমরা চলো, ঢাকা কলেজ রক্ষা করো- ঢাকা কলেজের ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’ স্লোগান দিতে দেখা যায়।

সংঘর্ষের ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন ইডেন মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরা। আজ বিকেলে রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নিয়ে তারা এ দাবি জানায়। ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ইডেন শিক্ষার্থীরা বলেন, ঢাকা কলেজ যৌক্তিক সব আন্দোলন-সংগ্রামে সবার আগে থাকে। তাদের ওপর এ ধরনের হামলা খুবই ন্যাক্কারজনক। এ সময় তাদের ‘ঢাকা কলেজের ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’,‘ইডেন কলেজ আসছে, রাজপথ কাঁপছে’,‘আমার ভাইয়ের বুকে গুলি কেন, প্রশাসন জবাব চাই’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে দেখা যায়।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password