নওগাঁর পত্নীতলায় অবৈধভাবে শিক্ষকদের বেতন বন্ধের অভিযোগ

নওগাঁর পত্নীতলায় অবৈধভাবে  শিক্ষকদের বেতন বন্ধের অভিযোগ

নওগাঁর পত্নীতলার চকনোদবাটি সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার ছয় শিক্ষকদের বেতন বন্ধের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো: লিটন সরকার এবং অত্র প্রতিষ্ঠানের রেজুলেশন বিহীন সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মাও মো: আব্দুল আজিজ এর বিরুদ্ধে।

জানা যায়, পত্নীতলা উপজেলার চকনোদবাটি সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসায় অবৈধভাবে শিক্ষা নীতিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ছয় শিক্ষকের বেতন ভাতা বন্ধ রেখেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো: লিটন সরকার এবং রেজুলেশন বিহীন সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মাও মো: আব্দুল আজিজ। উল্লেখ্য কোন প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটি না থাকলে শিক্ষা পরিপত্র অনুযায়ী সভাপতির স্থানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রতিষ্ঠানের সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে সাক্ষর করে থাকেন।

অত্র প্রতিষ্ঠানের সুপার মাও মো: আব্দুর রব অবসরে যাবার পরে শিক্ষানীতিমালা অনুযায়ী পদাধিকার বলে ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন মাও আব্দুল আজিজ। সুপার পদে নিয়োগ নেবার জন্য স্বইচ্ছায় ভারপ্রাপ্ত সুপার পদ থেকে পদত্যাগ করেন মাও আব্দুল আজিজ। আব্দুল আজিজ পদত্যাগ করার পরে পদাধিকার বলে ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন সিনিয়র শিক্ষিকা মোছা: মনোয়ারা খাতুন। তাকে কোন কারণ না দেখিয়ে অব্যহতি দেবার কথা জানান অত্র প্রতিষ্ঠানের সাবেক সভাপতি ও আমাইড় ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো: ইসমাইল হোসেন এবং সেই পদে শিক্ষানীতি কে হেই প্রতিপর্ণ্য করে এবতেদায়ি শিক্ষক মো: লোকমান হাকিম কে ভারপ্রাপ্তের দায়িত্ব দেয় তৎকালিন প্রতিষ্ঠান ম্যানেজিং কমিটি।

শিক্ষানীতি মালাকে হেই প্রতিপন্য করে এনতেদায়ি শিক্ষক মো: লোকমান হাকিম কে ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব দেওয়ার প্রতিবাদে অত্র প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র শিক্ষিকা মো: মনোয়ারা খাতুন আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং: নওগাঁ সহকারী জজ পত্নীতলা-১৩৩/২০২০। আদালতে মামলা হবার পরে ২৪ নভেম্বর ২০২০ সনে লোকমান হাকিম তৎকালিক প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বরাবর তার (ভারপ্রাপ্ত সুপার) পদটি বিধি সম্মত নয় মর্মে অব্যহতি প্রদান করেন। বর্তমানে অত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত সুপার হিসাবে বেতন ভাতার বিলে সাক্ষর করেন মাও আব্দুল আজিজ ও পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো: লিটন সরকার।

চকনোদবাটি সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হয় ৫ ডিসেম্বর ২০২০ সনে আর নিয়োগ বিঞ্জপ্তি বাতিল হয় ২৩ জানুয়ারী ২০২১ সনে। যে প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হয় সুপার পদে নিয়োগ বিঞ্জপ্তির মেয়াদ শেষ হবার আগে, সেখানে কোন শিক্ষানীতি অনুয়াযী পুনরায় মাও আব্দুল আজিজ ভারপ্রাপ্ত সুপার পদটি দখল করে প্রতিষ্ঠার পরিচালনা করেন?

এমন প্রশ্নের উত্তরে পত্নীতলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: মুসহাক আলী বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে আমি কিছু জানিনা। এটি উপজেলা নির্বাহী কমকতা মো: লিটন সরকার স্যার দেখছিলেন, তিনিই সব জানেন। অভিযুক্ত চকনোদবাটি সিদ্দিকিয়া দাখিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার মাও আব্দুল আজিজ এর সাথে অত্র প্রতিষ্ঠানে সরাররি যোগাযোগ করা হলে, অত্র প্রতিষ্ঠানের এবতেদায়ী শিক্ষক মো: লোকমান হাকিম অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত সুপার মাও আব্দল আজিজ কে কোন কথা বলতে না দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, এ বিষয়ে আমরা কোন বক্তব্য দিতে রাজি না।

এবিষয়ে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: লিটন সরকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানে দুটি গ্রুপ হয়েছে। একটি গ্রুপ বলে ভারপ্রাপ্ত সুপার আব্দুল আজিজ সাক্ষর করলে আমরা বিল উঠাবো না। আর মাও আব্দুল আজিজ এর ভারপ্রাপ্ত সুপারের পদটি বৈধ না অবৈধ এ বিষয়ে তদন্ত চলমান।

মন্তব্যসমূহ (০)