অবাধে বিক্রি হচ্ছে যৌন উত্তেজক ওষুধ

বড় বড় ফ্যার্মেসি থেকে শুরু করে ফুটপাত, সবখানেই যৌন উত্তেজক ওষুধের অবাধ কেনা বেচা চলছে। যার বেশিরভাগই অনুমোদনহীন ও নিম্নমানের। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই কিছু মানুষ এগুলো নিয়মিত সেবন করছেন। এতে একদিকে যেমন চরম স্বাস্থ্যঝুঁকি আছে, অন্যদিকে সামাজিক অবক্ষয় সৃষ্টির অন্যতম কারণ বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

রাজধানীর বড় একটি ফার্মেসি থেকেই পরিচয় গোপন করে এই যৌন উত্তেজক ট্যাবলেটটি আমরা কিনেছি। কিন্তু এটি কিনতে আমাদের কোন ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন দেখানোর প্রয়োজন হয়নি যদিও প্রেসক্রিপশন ছাড়া এ ধরণের ঔষুধ বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে মাঠ পর্যায়ে এগুলো দেখার কি কেউ নেইযৌন উত্তেজক এসব ওষুধের অবাধ কেনা বেচা শুধু ফার্মেসিতেই সীমাবদ্ধ নেই। ছড়িয়ে পড়েছে ফুটপাতেও।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, দেশের বাজারে প্রায় ২’শ ধরণের যৌন উত্তেজক ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে যার কয়েকটি ছাড়া সবই অনুমোদনহীন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে তৈরি হয়ে এগুলো সরাসরি চলে আসছে ঢাকায় ওষুধের বড় পাইকারি বাজার মিটফোর্ডে। আর এখান থেকেই ছড়িয়ে পড়ছে খুচরা বাজারে।

তবে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর বলছে, অনুমোদনহীন সব ধরণের ওষুধের কেনাবেচা বন্ধে তদারকি ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে তারা।

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এ ধরণের ওষুধ সেবন স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ বলছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।আর মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, অতিরিক্ত যৌন উত্তেজক ওষুধ সেবনের ফলে ব্যক্তির মানসিক সমস্যা ছাড়াও অপরাধ প্রবণতা বাড়ে।সামাজিক অবক্ষয় রোধে এ ধরণের ওষুধের অবাধ বিক্রি বন্ধের তাগিদ দেন তারা।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন