অসহায় পরিবারকে অবরুদ্ধ রাখার অভিযোগ

নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার বালুভরা ইউনিয়নের কুশারবাড়ি গ্রামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়ের করা মামলায় জামিনে বেরিয়ে এসেই প্রতিপক্ষকে অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ উঠেছে। মামলার আসামী মাসুদ রানা ও তার লোকজন মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দিয়ে বাদী আব্দুস ছালামের বাড়ির সামনের দুই পাশে বাঁশের বেড়া দিয়ে গত দুইদিন ধরে তাদের অবরুদ্ধ করে রেখেছে। এতে করে আব্দুস ছালামের পরিবার বাড়ির বাহিরে যেতে পারছে না। তারা বাজার করার অভাবে কোন ভাবে এক বেলা খেযে না খেয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিন অতিবাহিত করছে। 

অভিযোগে জানা গেছে, ওই গ্রামের প্রভাবশালী সাবেক ইউপি মেম্বার মফের আলীর ছেলে সোহেল রানা একই গ্রামের দিন মজুর অসহায় আব্দুস সালামের স্ত্রীকে দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্নভাবে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। গত দুই মাস আগে আব্দুস সালামের বাড়িতে মাদক আছে সন্দেহে তাকে ও তার স্ত্রীকে মারপিট করে সোহেল রানা। এই ঘটনায় বদলগাছী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে সোহেল রানাসহ পাঁচজনকে আসামী করে মামলা করে আব্দুস ছালাম। মামলায় সোহেল রানাকে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় থানা পুলিশ। ১২ দিন হাজতবাস করে জামিনে বেরিয়ে আসে সোহেল রানা। 

এরপর মামলা তুলে নিতে আসামী ও তাদের লোকজন মামলা তুলে নিতে নানাভাবে হুমুকি ধামকি দিযে আসছিল আব্দুস ছালামকে। এর একপর্যায় শনিবার সকালের দিকে হটাৎ করে সোহেল রানা ও তার লাঠিয়াল বাহিনী আব্দুস সালামের বাড়ির উত্তর ও দক্ষিণ পাশে চলাচলের রাস্তায় বাঁশের বেড়া দিয়ে ওই পরিবারের চলাচলের পথ বন্ধ করে দেয়। এই অবস্থায় আব্দুস সালাম ও তার পরিবারের ৬ সদস্য নিয়ে এখন তারা অবরুদ্ধ। দিন মজুর আব্দুস ছালাম বাড়ি থেকে বের হতে না পারায় তার আয় রোজগারও বন্ধ হয়ে গেছে।

ভুক্তভোগী আব্দুস সালাম অভিযোগ করে বলেন প্রভাবশালী সোহেল রানা দীর্ঘদিন তার পরিবারের উপর বিভিন্ন ভাবে অত্যাচার করে আসছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলাও হয়েছে। মামলার পর তারা আরো বেপারোয় হয়ে পড়েছে। মামলা তুলে নিতে এখন হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। মামলা তুলে নিতে না চাওয়ায় তারা শনিবার বাড়ির দুই পাশে চলাচলের রাস্তায় বাঁশের বেড়া দিয়েছে। বাড়ি থেকে বের হতে দিচ্ছেনা। বাঁশের বেড়া তুলে না নিলে আমাদের না খেয়ে মরতে হবে। 

একই গ্রামের সাজ্জাদ হোসেন বলেন, তারা কোন কিছুকেই তোয়াক্কা করে না। সোহেল রানার অত্যাচারে গ্রামের সাধারণ মানুষ চরম ভাবে অতিষ্ঠ। শুধু তাই নয় তারা আমার দুই বিঘা জমি জোর করে দখল করে নিয়েছে।তবে অভিযুক্ত সোহেল রানা  নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন মামলা তুলে নিতে তাদের কাউকে কোন হুমকি ধামকি দেওয়া হয়নি। কাউকে অবরুদ্ধও করা হয়নি। আমাদের পারিবারিক কবরস্থান রক্ষায় বাঁশের বেড়া দেয়া হয়েছে। 

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মো. আয়েন উদ্দীন বলেন, একটি বাড়ির সামনে চলাচলের পথে বেড়া দিয়ে প্রতিবন্ধকতা তৈরী করা ঠিক হয়নি। দুই পক্ষ যদি আসে আপোষ করে একটি ফায়সালার ব্যবস্থা করা হবে।বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) চৌধূরী জোবায়ের আহাম্মদ বলেন এধরনের কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন