নববধূকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে ব্যাপক মারধর

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে নববধূকে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে। স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ তুলে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। ভারতের ওড়িশার নবরংপুর জেলায় এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ জানায়, অভিযোগকারী পূজা সরকারের দাবি, বিয়ের পর থেকেই যৌতুক চেয়ে তার উপর মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার করে চলেছে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। স্বামীও বারবার তার কাছ থেকে যৌতুকের টাকা দাবি করে। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই এখন নতুন একটি কারণ দেখিয়ে মারধর করা হচ্ছে নববধূকে। শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের সন্দেহ, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত পূজা। যে কারণে দিন-রাত তার উপর চলছে অত্যাচার।

পূজা জানান, গত কয়েক দিন ধরে সর্দি-কাশি আর জ্বরে ভুগছেন তিনি। তারপর থেকেই স্বামী ও অন্যান্যদের সন্দেহ হয় তিনি করোনায় আক্রান্ত। শরীরে করোনা ভাইরাসের জীবাণু ঢুকেছে অনুমান করে তাকে জোর করে মাটিতে শুতে দেওয়া হচ্ছে। এমনকি বাড়ির শৌচালয়ও ব্যবহার করতে দিচ্ছে না শ্বশুর-শাশুড়ি। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে উমারকোট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

ভারতীয় একটি গণমাধ্যমে জানানো হয়েছে, গত ২ মার্চ জয়ন্ত কুমারের সঙ্গে বিয়ে করে নতুন সংসারে পা রাখেন মুর্তুমা গ্রামের পূজা। বিয়েতে যৌতুক হিসেবে নগদ আড়াই লক্ষ টাকা, গয়না, মোটরবাইক এবং পাঁচ লক্ষ টাকার সামগ্রী দিয়েছিল পূজার পরিবার। কিন্তু এতেও স্বাদ মেটেনি শ্বশুরবাড়ির। পূজার পরিবারের থেকে আরও পাঁচ লক্ষ টাকা দাবি করতে শুরু করে তারা। সে দাবি না মেটায় এখন করোনা আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে।

পূজা বলেন, ‘আগে যৌতুক চেয়ে স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি অত্যাচার করতেন। কিন্তু সর্দি-কাশি হতেই সকলে ভাবে আমি করোনায় আক্রান্ত।’ নবরংপুর থানার এসপি নীতীন কুসলকর জানান, ‘উমারকোট থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন নববধূ। ইতিমধ্যেই জয়ন্ত কুমার এবং তার বাবাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে গার্হস্ত হিংসার জন্য মামলা রুজু হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন