নওগাঁর সাপাহারে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

নওগাঁর সাপাহারে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলায় নিভৃত পল্লীর গ্রামে গ্রামে গিয়ে সাধারণ জনগণকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়েছে প্রতারক চক্রের দুই সদস্য।

জামালগঞ্জ, জয়পুরহাট জেলার ঠিকানায় ‘জনতা মুরগী ফার্ম এন্ড হ্যাচ্যারী’ নামের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলেন তারা। জানা গেছে, অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সময়ে মনির হোসেন ও তার এক সহযোগী সাপাহার উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল পিছলডাঙ্গা গ্রামে আসেন এবং তারা জনতা মুরগী ফার্ম এন্ড হ্যাচারী থেকে এসেছেন বলে পরিচয় প্রকাশ করেন। ওই এলাকার ভুক্তভোগী অসংখ্য নারী পুরুষের নিকট থেকে জানা গেছে, তারা প্রতিটি গ্রাম হতে একজন করে নারী পুরুষকে নেতা-নেত্রী নিযুক্ত করেন। পরে তাদেরকে সাথে নিয়ে একটি পরিবারে সহজ কিস্তিতে ৫শো ডিমপাড়া ২০টি করে মুরগি এবং মুরগির বাসযোগ্য একটি করে ঘর প্রদান করা হবে বলে জানায়।

এরপর দু’ একজন নেতা নেত্রীকে ১০টি করে মুরগিও প্রদান করা হয়। এক পর্যায়ে তারা ফার্মের একটি কাগজে মুরগির ঘর বাবদ নগদ ৫০০ করে টাকা আদায় করে এবং পরে মুরগি প্রদান করা হবে বলে পিছলডাঙ্গা গ্রামের ৪৪ জনের নিকট থেকে ২২হাজার টাকা, সিংগাহার গ্রামের ২০ জনের নিকট থেকে ১০ হাজার টাকা, মধ্যপাড়া গ্রামের ২৫ জনের নিকট হতে ১২ হাজার ৫শো টাকা, পোকড়াহার গ্রামের ৪০ জনের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা, ধর্মপুর গ্রামের ১শো জনের নিকট থেকে ৫০ হাজার টাকা, মলপাড়া গ্রামের ৪০ জনের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা, বিদ্যানন্দী গ্রামের ৪০ জন সদস্যের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা এবং শাহাবাজপুর গ্রামের ১শো জনের নিকট থেকে ৫০ হাজার টাকা সহ সর্বমোট ১লক্ষ ৯২হাজার টাকা গ্রহণ করে। মুরগি দেবার কথা বলে প্রত্যেক সদস্যের নিকট ০১৭৩৮-৩৬৪২৩৭ ও ০১৭১৭-৩৮০৪৩৯ মোবাইলে যোগাযোগ করার কথা বলে চম্পট দেয়।

২০ অক্টোবর টাকা আদায় করে ২১ অক্টোবর তাদের দেয়া ফোনগুলি খোলা থাকলেও রহস্যজনকভাবে ২২ অক্টোবর হতে প্রত্যেকের ফোন বন্ধ হয়ে যায়। এর পর থেকে অদ্যবধি কোনো গ্রাহকই আর তাদের সাথে কোনো রকম যোগাযোগ করেনি।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password