গীবত কাকে বলে, এর শাস্তি কী

বর্তমানে মানুষ নিজের অজান্তেই গীবত করে বসে। কিন্তু জানেন না এর শাস্তি কি?। আজ আলোচনা করা হবে গীবত কাকে বলে, এর পরিণাম সস্পর্কে।‘গীবত’ অর্থ বিনা প্রয়োজনে কোন ব্যক্তির দোষ অপরের নিকটে উল্লেখ করা।‘গীবত হলো কোনো মানুষের এমন কিছু বিষয় যা তার অনুপস্থিতিতে উল্লেখ করা, যা সে অপছন্দ করে, যদিও তা তার মধ্যে বিদ্যমান থাকে।’ এসব সংজ্ঞা মূলত হাদিস হতে নেওয়া হয়েছে।

রাসূলুল্লাহ্‌ (সা) গীবতের পরিচয় দিয়ে বলেন- ‘গীবত হলো তোমার ভাইয়ের এমন আচরণ বর্ণনা করা, যা সে খারাপ জানে।’গীবত করার পরিণাম- আল্লাহ্‌ তা’আলা বলেন- ‘তোমাদের কেউ যেন কারো গীবত না করে, তোমাদের কেউ কি চায় যে, সে তার মৃত ভাইয়ের গোশত ভক্ষণ করবে? তোমরা তো এটাকে ঘৃণাই করে থাকো’। [সূরা হুজুরাত – ১২] অত্র আয়াত প্রমাণ করে যে, গীবত করা মৃত ব্যক্তির গোশত ভক্ষণ করার শামিল।

গীবত জাহান্নামে শাস্তি ভোগের কারণ- রাসূলুল্লাহ্‌ (সা) বলেন- ‘মিরাজ কালে আমি এমন কিছু লোকের নিকট দিয়ে অতিক্রম করলাম, যাদের নখগুলি পিতলের তৈরি, তারা তা দিয়ে তাদের মুখমণ্ডল ও বক্ষগুলিকে ছিঁড়ছিল। আমি জিজ্ঞাস করলাম, এরা কারা হে জিবরীল? তিনি বললেন এরা তারাই যারা মানুষের গোশত খেত এবং তাদের ইজ্জত-আবরু বিনষ্ট করত।’

আব্দুল্লাহ্‌ ইবন মাসউদ (রা) বলেন- (একদা) আমরা নাবী কারীম (ﷺ)-এর নিকটে ছিলাম। এমতাবস্থায় একজন ব্যক্তি উঠে চলে গেল। তার প্রস্থানের পর একজন তার সমালোচনা করল। তখন রাসূলুল্লাহ্‌ (ﷺ) তাকে বললেন,তোমার দাঁত খিলাল কর। লোকটি বলল, কি কারণে দাঁত খিলাল করব? আমিতো কোন গোশত ভক্ষণ করিনি। তখন তিনি বললেনঃ নিশ্চয়ই তুমি তোমার ভাইয়ের গোশত ভক্ষণ করেছ অর্থাৎ ‘গীবত’ করেছ।

গীবত করলে কবরে শাস্তি হয় :- একদা রাসূলুল্লাহ্‌ (ﷺ) দুটি কবরের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন, হঠাৎ তিনি থমকে দাঁড়ালেন এবং বললেন, ‘এই দুই কবরবাসীকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে। তবে তাদেরকে তেমন বড় কোনো অপরাধে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না (যা থেকে বেঁচে থাকা তাদের জন্য সহজ ছিল)। এদের একজনকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে, চোগলখোরী করার কারণে এবং অন্যজনকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে পেশাবের ব্যাপারে অসতর্কতার কারণে। (পেশাবের ছিটা থেকে বাচত না ) অপর হাদিসে চোগলখোরীর পরিবর্তে গীবত করার কথা উল্লেখ রয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন