চাঁপাইনবাবগঞ্জের একমাত্র করোনা ইউনিট অর্থ সঙ্কটে বন্ধ হলো

দ্বিতীয় দফায় শুরু হওয়া লকডাউনের প্রথম দিনেই অর্থ সংকটে বন্ধ করা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট। গত তিনমাস ধরে চলা করোনা ইউনিট হঠাৎ বন্ধ হওয়ার কারণ হিসেবে অর্থ সংকটকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা।

রোববার (৪ এপ্রিল) করোনা ইউনিটে যে দুজন ভর্তি ছিলেন, তাদেরকেও রেফার করা হয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে। এতে রোগীশূন্য করে কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে করোনা ইউনিট।মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের পঞ্চম তলায় করোনা ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে সবকিছু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম ধাপে হাসপাতালের সপ্তম তলায় চালু হয় করোনা ইউনিট। চালুর পর থেকে ডাক্তার-নার্সদের থাকা, খাওয়াসহ বিভিন্ন সুবিধা দিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়। গত তিনমাসে ডাক্তার-নার্সদের বিভিন্ন সুবিধা, পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বেতন, নতুন বেড স্থাপনসহ সবমিলিয়ে খরচ হয় প্রায় ২০ লাখ টাকা। বিভিন্ন হোটেলের খাবার বিলসহ আনুষাঙ্গিক প্রায় সব খরচই বাকি রয়েছে বলে জানা গেছে।

করোনা ইউনিটে দায়িত্বরত এক নার্স সাংবাদিককে জানান, রোববার দুইজন করোনা রোগীকে রামেক হাসপাতালে পাঠানোর পর রোগীশূন্য হয় জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট। তবে রোগী না থাকলেও সকালে ওয়ার্ডের সব রুম পরিষ্কার করা হয়েছে। বেডের বিছানা, চাদরসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিবর্তন করা হয়েছে। যেকোনো সময়ের জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত রাখা হয়েছে করোনা ইউনিট।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, এই মুহূর্তে কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে করোনা ইউনিট। এমনকি করোনা ইউনিট চালুর বিষয়ে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। সরকারের নির্দেশনা পেলেই এর কার্যক্রম শুরু করা হবে।

আর্থিক সংকটে করোনা ইউনিট বন্ধ রাখার বিষয়টি স্বীকার করে সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী মোবাইল ফোনে সাংবাদিককে বলেন, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের ২০ শয্যাবিশিষ্ট করোনা ইউনিটে সোমবার (৫ এপ্রিল) পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়েছেন ১৫৫ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। বর্তমানে জেলায় যে ৩৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছেন তারা প্রায় সবাই ভালো আছেন এবং বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

তিনি আরও বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রায় ২০ লাখ টাকার বিল পাঠানো হয়েছে। আমরা আশা করছি, খুব শিগগিরই বিল পাওয়া যাবে। সরকারের নির্দেশনা পেলেই যেকোনো মুহূর্তে করোনা ইউনিট আবার চালু করা হবে।জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুর পর্যন্ত জেলায় বর্তমানে ৩৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। এদের মধ্যে রোববারই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০ জন ও সোমবার আরও আটজন। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত রোগী আছেন ৮৬১ জন। মারা গেছেন ১৪ জন।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন