পরীক্ষা ছাড়াই পশু জবাইয়ে বাড়ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি

স্বাস্থ্য বিধি না মেনে এবং পরীক্ষা ছাড়াই জেলার যত্রতত্র পশু জবাইসহ মাংস বিক্রি করা হচ্ছে। ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন জেলার মাংসভোজীগণ। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের নির্দেশনা থাকার সত্বেও স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়াই অবাধে পশু জবাই ও মাংস বিক্রি করা হলেও দেখার জন্য যেন কারো দায়-দায়ীত্ব নেই। 

সদর পৌর শহরের কালিবাড়ি বাজার, গোধুলী বাজার, স্টেশনরোড বাজার, র্আট গ্যালারী ও বিসিক মোড়সহ জেলার প্রত্যেক গ্রাম গঞ্জের হাট-বাজারগুলোতে গরু, ছাগল, ভেড়া, মহিষ অবাধে জবাই করা হচ্ছে। জবাইয়ের আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষার নিয়ম থাকলেও তা মানা হচ্ছে না, বাঁধাও দেওয়া হচ্ছে না।

সরেজমিনে জেলা সদরের একমাত্র কশাইখানায় গিয়ে দেখা যায়, পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়াই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পশু জবাই করে মাংস তৈরির কাজে ব্যস্ত কসাইয়ের দল। পশু জবাইয়ের রেজিস্টার খাতা দেখতে চাইলে তারা খাতাটি সরিয়ে ফেলে বলেন, খাতা দেখানো পৌর সচিব রাশেদুর রহমানের নিষেধ আছে।  

এ ব্যাপারে পৌর সভার সচিব রাশেদুর রহমান জানান, পৌরসভায় কোন পশু ডাক্তার নেই। ফলে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি। বিষয়টি মেয়রকে বলা হলেও তিনি কোন সমাধান দিতে পারেননি।পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যাপারে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আলতাফ হোসেনের সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

তবে এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডা. মাহাফুজার রহমান সরকার বলেন, অসুস্থ গরু বা ছাগল-ভেড়ার মাংস খাওয়া অবশ্যই ঝুঁকিপূর্ণ। ঠাকুরগাঁওয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা পশু জবাই ও বিক্রি করার বিষয়টি আমি আপনার মাধ্যমে অবগত হলাম। এব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে অবশ্যই জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতরকে বলব ।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন