লোহাগাড়ায় গৃহবধুকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার চুনতি পানত্রিশা গ্রামে ছালেহা বেগম(৩২) নামের এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে। তিনি ওই এলাকার কৃষক মু. কামাল উদ্দিনের স্ত্রী। এ ঘটনায় লোহাগাড়া থানা পুলিশ লোহাগাড়ার চুনতি পান্ত্রিশা গ্রামের মু. ফরিদুল আলম (৪৫) ও তার স্ত্রী খুকি আকতার (৩২) কে আটক করেছে।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় লোহাগাড়ায় থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে বলেও জানান থানার ওসি মো. জাকের হোসাইন মাহমুদ।

জানা যায়, ছালেহা বেগমের ছেলে মহিম (৮) বিব্দীদের বসত বাড়ির উঠানে খেলছিল। আটককৃতরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মহিমকে মারধর করে। মারধরের কারণ জানতে গেলে আটককৃতরা ছালেহা বেগমকে মারধর করে ওড়না দিয়ে প্যাঁচিয়ে গাছের সাথে বেঁধে রাখে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে পুলিশের একটি টীম ঘটনাস্থল থেকে আহত ছালেহা বেগমকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করেন। ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত ২ জনকে আটক করে থানা পুলিশ।

লোহাগাড়া থানার ওসি মো. জাকের হোসাইন মাহমুদ বলেন, উপজেলর চুনতি পানত্রিশায় গাছের সাথে ওড়না প্যাঁচিয়ে বেঁধে ছালেহা বেগম নামের এক গৃহবধুকে নির্যাতনের অভিযোগে মহিলাসহ ২ জনকে আটক করে থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়। তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন