নেত্রকোনায় ধর্ষণ মামলা তুলে নেওয়ায় জন্য প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখম

ধর্ষণ মামলা তুলে নেওয়ায় জন্য এক প্রতিবন্ধী কলেজছাত্রীকে পিটিয়ে জখম করে নেত্রকোনার মদনে তিয়শ্রী ব্রিজের নিচে ফেলে রাখে ধর্ষকসহ পরিবারের লোকজন। পরে এলাকাবাসী উদ্ধার করে তাকে মদন উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন।উপজেলার নায়েকপুর ইউনিয়নে মাঘনা গ্রামে বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

আহত কলেজছাত্রী বলেন, গত বছরের ১৬ আগস্ট মাঘনা গ্রামের করিম মিয়ার ছেলে অপু আমাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনার পর ১৯ আগস্ট মদন থানায় তার বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করি। এ থেকেই ধর্ষণ মামলাটি তুলে নেয়ার জন্য আমাকে বিভিন্ন সময় চাপ সৃষ্টি করে আসছে।

তিনি বলেন, চলতি বছরের ১ এপ্রিল জামিনে ছাড়া পেয়ে অপু বাড়িতে আসে। পরে আমাকে বিয়ে করবে বলে প্রলোভন দিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে নিয়ে যায়। বুধবার আমাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায় অপু এবং মা-বাবার কাছে আমাকে বিয়ে করার জন্য বলে। এ কথা বলতেই অপুর বাবা আব্দুল করিম, অপু নিজেসহ কয়েকজন মামলাটি তুলে আনার জন্য আমাকে চাপ সৃষ্টি করে। একপর্যায়ে আমাকে মারপিট করে।

ওই ছাত্রী বলেন, পরে অচেতন অবস্থায় আমাকে তিয়শ্রী ব্রিজের নিচে ফেলে যায়। আমার এমনিতে একটি চোখ নষ্ট আরও একটি চোখ তারা নষ্ট করে ফেলেছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, অপুর বিরুদ্ধে গত ১৯ আগস্ট মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন প্রতিবন্ধী কলেজছাত্রী। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন আছে। মারপিটের বিষয়টি তদন্ত করছি।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন