সেলফি তোলার পর গর্ভবতী স্ত্রীকে পাহাড় চূড়া থেকে ফেলে দিলেন স্বামী

সাত মাসের গর্ভবতী স্ত্রীকে নিয়ে পাহাড়ি এলাকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে বেরিয়েছিলেন স্বামী। ক্যামেরা বন্দি করেছিলেন দু’জনের বেশ কিছু রোমান্টিক সেলফিও। কিন্তু এর পরই ভয়াবহ ঘটনা ঘটান পাষণ্ড স্বামী। গর্ভবতী স্ত্রীকে এক হাজার ফুটেরও বেশি উচ্চতা থেকে ফেলে দেন নিচে। ফলে মৃত্যু হয় গর্ভবতী সেই নারী ও তার অনাগত সন্তান উভয়ের।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সান জানিয়েছে, ২০১৮ সালের জুনে তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর মুগলায় মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনার তদন্তে গত বছরের নভেম্বরে গ্রেফতার হয়েছেন অভিযুক্ত স্বামী ৪০ বছর বয়সী হাকান আয়সেল।

আলোচিত এ মামলার প্রসিকিউটররা জানিয়েছেন যে, ৩২ বছর বয়সী সেমরা আয়সেলের মৃত্যু কোনো দুর্ঘটনা ছিলো না। পুরো ব্যাপারটিই ছিলো পূর্বপরিকল্পিত।তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মূলত স্ত্রীর নামে থাকা জীবন বীমার ৪ লাখ তুর্কি লিরা (প্রায় ৪৫ লাখ টাকা) পাবার জন্যই তার স্বামী এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

স্ত্রীর মৃত্যুর পর অভিযুক্ত স্বামী হাকান আয়সেল বীমা প্রতিষ্ঠানের কাছে পরিকল্পনা অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ দাবি করেছিলেন। তবে মৃত্যুর ঘটনাটি তদন্তাধীন থাকায় তার আবেদন সেসময়ে বাতিল করা হয়।

এদিকে নিজের বিরুদ্ধে আসা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন হাকান আয়সেল। তিনি দাবি করেছেন, পুরো ব্যাপারটিই দুর্ঘটনা ছিলো।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন