অবশেষে জানা গেল আজহারীর চালানো বিলাসবহুল সেই গাড়ির রহস্য

আলোচিত বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী আপাতত আর কোনো ওয়াজ মাহফিলে যোগ দেবেন না জানিয়েছে, মালয়েশিয়ায় চলে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। ফেসবুকে তার এমন ঘোষণার পর আর কোনো মাহফিলে তাকে দেখা না গেলেও সমালোচনা তার পিছু ছাড়ছে না।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি গাড়ি ও সেটি চালানো অবস্থায় আহারীর কয়েকটি ছবি ভাইরাল হয়। ছবিতে আজহারী একটি ‘বেন্টলি’ গাড়ি চালানো অবস্থায় দেখা যায়; যার বাজারমূল্য কমপক্ষে ৫ কোটি টাকা।

ছবিগুলো বিভিন্ন ফেসবুক পেজ ও আইডি থেকে পোস্ট করে প্রশ্ন তোলা হয়, ইসলামের একজন দাঈ হয়ে কীভাবে এত দামি গাড়ি কেনেন আজহারী? যেখানে মাহফিলে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও সাহাবাদের ত্যাগী ও সাদাসিধে জীবনের কথা বলেন তিনি? তবে কি মালয়েশিয়ায় তিনি বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন?

সমালোচনাকারীরা এও বলছেন, দেশে ওয়াজ করে কোটি কোটি টাকা কামিয়ে বিলাসবহুল জীবনযাপন করতেই মালয়েশিয়া গেছেন তিনি। এ নিয়ে আজহারীভক্তদের সঙ্গে সমালোচনাকরীদের বিতর্কও দেখা যাচ্ছে ফেসবুকে।

তবে গাড়ি চালানোর ওই ছবিটি মালয়েশিয়া থেকে তোলা হয়নি বলে দাবি করা হয়েছে কালের কণ্ঠ অনলাইনের একটি খবরে। এতে বলা হয়েছে, এ বিলাসবহুল গাড়ি আহারীর নয় এবং তিনি মালয়েশিয়ায় গিয়ে এ গাড়ি চালাননি। ছবিগুলো তার সম্প্রতি সময়েও তোলা নয়। মূলত এ গাড়িটি আজহারী চালিয়েছেন সিঙ্গাপুরে। আর গাড়ির মালিকের নাম- সাহিদুজ্জামান টরিক।

সাহিদুজ্জামান টরিকের এক ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাতে বলা হয়েছে, সাহিদুজ্জামান টরিক সিঙ্গাপুর-বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্সের সাবেক সভাপতি। তার দেশের বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলায়। ছয়-সাত মাস আগে টরিকের নিমন্ত্রণে এক মাহফিলে যোগ দিতে সিঙ্গাপুরে যান মিজানুর রহমান আজহারী। সে সময় সেখানে টরিকের এই গাড়িতে চড়ে সিঙ্গাপুর ঘুরে বেড়ান। তিনি নিজেও অল্প কিছু সময় গাড়ি চালান। সে সময় তোলা ছবিগুলোই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ব্যক্তি বলেন, গাড়ির নেমপ্লেট দেখলেই বোঝা যায় এটা মালয়েশিয়ার কোনো গাড়ি নয়। এখানে SJZ888IR লেখা। আর এমন নেমপ্লেট সিঙ্গাপুরের গাড়িগুলোর হয়ে থাকে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার পাঁচকমলাপুর দারুল উলুম হাফেজিয়া কওমি মাদ্রাসায় তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে বক্তব্য দেয়ার সময় সাহিদুজ্জামান টরিককে আহারীর পাশে দেখা যায়।

আলোচনার শুরুতে আজহারী বলেন, এ মাহফিলের আয়োজক সাহিদুজ্জামান টরিক আমার বড়ভাই। তিনি একজন শিল্পপতি ও সিঙ্গাপুর বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্সের সাবেক সভাপতি। সিঙ্গাপুর গেলে আমি তার কাছেই থাকি। গত কোরবানি ঈদে সেখানে তার তত্ত্বাবধানে বেশ কয়েকটি ইসলামি প্রোগ্রামে অংশ নিয়েছি।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন