শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে না দিলে আন্দোলন, ঘোষণা ছাত্রদলের

দেশেকে মেধাশুন্য ও বেকারত্বের অভিশাপ থেকে বাঁচাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল।

শনিবার সকাল ১১টায় রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদল উক্ত সমাবেশ করে। 

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজসহ রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা উক্ত সমাবেশে অংশ নেন। 

সমাবেশে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, "করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রায় এক বছরের অধিক সময় ধরে বন্ধ। এ সময় অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষার নেওয়ার কথা বলা হলেও বাস্তবে কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ আমরা লক্ষ্য করিনি"।

তিনি আরও বলেন, “শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে জাতিকে যেভাবে মেধাশূন্য করে রাখা হচ্ছে, তাতে একদিকে যেমন বেকারত্বের হার বাড়বে, অন্যদিকে অনেক শিক্ষার্থী তাদের চাকরির বয়সসীমা হারিয়ে আজীবন বেকারত্বের পথ বেছে নিবে।" 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে না দিলে উক্ত সমাবেশে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তিনি। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, “আমরা জেনেছি আগামী ১৩ জুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কিন্তু এই অবৈধ সরকার ১৩ তারিখ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলতে দেবে কিনা তা আমরা নিশ্চিত নই"। 
“এই করোনার দোহাই দিয়ে ১২ তারিখের পর যদি আবার ক্যাম্পাসগুলো বন্ধ রাখা হয়, তাহলে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবে।” 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব আমানুল্লাহ আমানের সঞ্চালনায় সমাবেশে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলও বক্তব্য দেন। 

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আকতার হোসেন, নাছির উদ্দীন নাছির, মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password