চিনি ও পাম অয়েলের দাম নির্ধারণ

চিনি ও পাম অয়েলের দাম নির্ধারণ

পাম অয়েল ও চিনির মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে ট্যারিফ কমিশন। গতকাল বৃহস্পতিবার পাম অয়েল সুপারের খুচরা পর্যায়ে দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে ১৩৩ টাকা লিটার। খোলা চিনির কেজি ৮৪ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনির কেজি ৮৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ট্যারিফ কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। ৩০ আগস্ট বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় ৯টি পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়া হবে।

বৈঠক শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ওই ঘোষণা দিয়েছিলেন। ঘোষণার ২৩ দিন পর শুধু পাম অয়েল ও চিনির দাম বেঁধে দেওয়া হলো। ট্যারিফ কমিশন জানায়, খুচরা মূল্য ছাড়াও পাম অয়েল ও চিনির উৎপাদক এবং পাইকারি পর্যায়ের মূল্যও নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রতি লিটার পাম অয়েল সুপারের মিলগেট বা উৎপাদক পর্যায়ের মূল্য ১২৮ টাকা এবং পরিবেশক বা পাইকারি পর্যায়ের মূল্য ১৩০ টাকা।

খোলা চিনির মূল্য আরো ছয় টাকা কমিয়ে কেজিপ্রতি সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৪ টাকা; মিলগেট ও পরিবেশক পর্যায়ে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে যথাক্রমে ৭৯ ও ৮১ টাকা কেজি। অন্যদিকে প্যাকেটজাত চিনির (পরিশোধিত) সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে কেজিপ্রতি ৮৯ টাকা; যার মিলগেট ও পরিবেশক পর্যায়ে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে যথাক্রমে ৮২ ও ৮৪ টাকা কেজি।

ট্যারিফ কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, নতুন এই মূল্য ২৫ সেপ্টেম্বর রবিবার থেকে কার্যকর হবে। এর আগে ২৩ আগস্ট প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেলের দাম বেঁধে দেওয়া হয় ১৭৫ টাকা। পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম করা হয় ৯৪৫ টাকা। আর এক লিটার খোলা পাম তেলের দাম ধরা হয় ১৪৫ টাকা। নতুন দর অনুসারে পাম তেলে দাম কমেছে লিটারে ১২ টাকা।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password