বিভিন্ন অঞ্চলে অভিযান, লাখ টাকা জরিমানা

বিভিন্ন অঞ্চলে অভিযান, লাখ টাকা জরিমানা

খাবারের দোকানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, নিত্যপণ্যের দোকানে মূল্য তালিকা না থাকা, নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধি এবং স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) বিভিন্ন অঞ্চলে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় এক লাখ দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আজ বুধবার অভিযানে অঞ্চল-০৫ এর আওতাধীন ২৬নম্বর ওয়ার্ডস্থ কারওয়ান বাজার এলাকায় উচ্ছেদ ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোতাকাব্বীর আহমেদ এই অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে বিভিন্ন ধারায় ১০টি মামলায় মোট ৪১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অঞ্চল-০৪ (মিরপুর-১০) ১৪নং ওয়ার্ড এলাকায় মো. আবেদ আলী আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। অভযানে প্রায় ৩৭টি ভবন, স্থাপনা, জলাশয়, রেস্টুরেন্ট ও দোকানপাট পরিদর্শন করা হয়েছে। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ ও ভেজাল খাদ্যদ্রব্যর বিরুদ্ধে ২টি হোটেলকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৩ ধারায় ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস জনিত রোগের বিস্তার রোধকল্পে জনসাধারণকে সতর্ক করাসহ প্রায় ১০০টি মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। অঞ্চল-০৯ এর আওতাধীন নতুন বাজার, ভাটার এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী জিয়াউল বাসেত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় রাস্তার ওপরে থাকা ১০টি ফলের দোকান অপসারণ করা হয়।

বাজার মনিটরিং করে মোট ১৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অঞ্চল-০২ এর আওতাধীন ওয়ার্ড নং ০৩ মিরপুর মডেল থানা এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। মো. জিয়াউর রহমান, আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।

ভেজাল খাদ্যদ্রব্যের বিরুদ্ধে হোটেল, রেস্তোরায় মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করা হয়। ৪টি মামলায় মোট ১৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় অঞ্চল-০১, ওয়ার্ড নং-০১ এর সেক্টর ৬ ও ৪ এ আজমপুর এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। মো. জুলকার নায়ন আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নিবাহী ম্যাজিস্ট্রেট (অঞ্চল-১) মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।

মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে দোকান মালিকগণ দ্রব্যমূল্যের তালিকা মোতাবেক বিক্রি হচ্ছে কিনা ও স্বাস্থবিধি সঠিকভাবে মানা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করা এবং জনসাধারণের মাঝে প্রায় ৫০টি মাস্ক বিতরণ করা হয়, অভিযান পরিচালনাকালে জরিমানা করার মত পরিস্থিতির উদ্ভব হয়নি। এ ছাড়া ওয়ার্ড-১৭ এর খিলক্ষেত উত্তর নামাপাড়া এলাকায় ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাপস শীল উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন। উচ্ছেদ অভিযানে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে প্রায় ৩০০মিটার রাস্তা দখলমুক্ত করা হয়।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password