সীমান্তে গোলা বর্ষণের ঘটনায় মিয়ানমারের ওপর ক্ষুব্ধ ঢাকা

সীমান্তে গোলা বর্ষণের ঘটনায় মিয়ানমারের ওপর ক্ষুব্ধ ঢাকা

সীমান্তে গোলা বর্ষণের ঘটনায় মিয়ানমারের ওপর ক্ষুব্ধ ঢাকা। আবারও দেশটির রাষ্ট্রদূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানাবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, এ তথ্য জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। আজ শনিবারও (৩ সেপ্টেম্বর) বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু সীমান্ত এলাকায় হেলিকপ্টার টহল অব্যাহত রেখেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

এদিন সকালে ঘুমধুম ইউনিয়নের রেজু আমতলী ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সীমান্ত এলাকায় হেলিকপ্টার টহল দিতে দেখা যায়। এ সময় বেশকিছু গুলিবর্ষণ ও গোলা নিক্ষেপের শব্দ শুনতে পায় বলে জানায় স্থানীয়রা। ফলে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন তারা। এ বিষয়ে বান্দরবান পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, সীমান্তে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্তক অবস্থায় রয়েছে।

জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং উত্তেজনার ঘটনা মিয়ানমারের সীমান্তের মধ্যেই ঘটেছে। স্থানীয়দের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলেও জানান তিনি। পুলিশ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জানায়, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ২টি যুদ্ধ বিমান এবং ২টি ফাইটিং হেলিকপ্টার থেকে ৩০-৩৫ রাউন্ড গুলি এবং ৮ থেকে ১০টি গোলা নিক্ষেপ করা হয়।

এছাড়াও ১নং ওয়ার্ডের তুমব্রু বিজিবি বিওপির সীমান্তে ৪ রাউন্ড ভারী অস্ত্রের ফায়ার করা হয়েছে। এর আগে, মিয়ানমার থেকে ছোড়া মর্টার শেলের গোলা বান্দরবনের ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু সীমান্তে এসে পড়ার ঘটনায় দেশটির রাষ্ট্রদূতকে কড়া ভাষায় সতর্ক করেছিল ঢাকা। গত ২৯ আগস্ট ভার্চুয়াল তলবে ঢাকা এই ঘটনার পূনরাবৃত্তি চায় না বলে সাফ জানিয়েছিল। তার আগের দিনই অর্থাৎ ২৮ আগস্ট বেলা তিনটার দিকে মিয়ানমার থেকে ছোড়া দুটি মর্টার শেল বাংলাদেশের সীমান্তে এসে পড়ে। তবে সেগুলো বিস্ফোরিত হয়নি। হতাহতের ঘটনাও ঘটেনি।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password