আন্দোলনরত সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করার দাবি

আন্দোলনরত সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করার দাবি

গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের উদ্যোগে আজ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ বুধবার সকাল ১০:৩০ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে “নির্বাচন কমিশনকে আইন করে স্বাধীন করা এবং আন্দোলনরত সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করার দাবিতে গণসমাবেশ” অনুষ্ঠিত হয়।

গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এম-এল) সাধারণ সম্পাদক কমরেড হারুন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সামছুল আলম, পিডিবি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ খান, সোস্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (SDP) এর আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, সাবেক ছাত্রনেতা বিধান দাস সহ গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।

এ সময় বক্তারা বলেন, “স্বাধীনতার ৫০ বৎসর পর বাংলাদেশের যে কয়টি নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছে তার মধ্যে বেশীর ভাগ নির্বাচন কমিশন ক্ষমতাসীন দলের পক্ষে নিরচ্ছিন্নভাবে কাজ করছে। স্বাধীনভাবে নির্বাচন ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য কোন কাজ করে নাই।

১৯৭৩ সালের নির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান নির্বাচন কমিশনকে স্বাধীনভাবে দাঁড় হতে দেয় নাই। এরপর জিয়াউর রহমান, হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ নির্বাচন কমিশনকে ব্যবহার করে ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করেছে। আবার বিচারপতি শাহাবুদ্দিন অস্থায়ী সরকা গড়ে তোলার চেষ্টা করেছে। বেগম খালেদা জিয়া মাগুরার উপ-নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশনকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গিয়েছেন।

এর ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনার সরকার নির্বাচন কমিশনকে ব্যবহার করে দিনের নির্বাচন রাতে করেছে। আর নির্বাচন কমিশন শাসক দল আওয়ামী লীগের তল্পীবাহক হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য নির্বাচনে কমিশনকে আইন করে স্বাধীন করতে হবে এবং আন্দোলনরত সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে ২০২২ সালে নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে।”

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password