নওগাঁর পোরশায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

নওগাঁর পোরশায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

নওগাঁ পোরশা উপজেলার ৩১নং গুন্দইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এই বিষয়ে গ্রামবাসীর পক্ষে রায়হান কবির নামে এক ব্যক্তি লিখিত অভিযোগ করেন।

এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই বিদ্যালয় কর্মরত মোট ৪ জন শিক্ষক রয়েছেন এর মধ্যে মাজেদ আলী ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভারপ্রাপ্ত প্রধানের দায়িত্বে আছেন। তবে তিনি বিদ্যালয় এসে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেন না মনের ভুলেও। "প্রতিদিন বিদ্যালয়ে আসেন সকাল ৯টার দিকে আবার চলে যান সময়ের অনেক আগে"। বিদ্যালয় এসেই আগে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন তিনি। স্কুলের ক্লাসে ছাত্র/ছাত্রীদের নানা অজুহাত দেখিয়ে তাদের গালিগালাজ করেন। স্কুলের এক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী তাবাসসুম খাতুন তুষ্টিকে বিগত দিনে পিএসসি পরিক্ষার সুযোগ না দিয়ে স্কুল থেকে বের করে দেন। পরবর্তীতে তার বাবা স্কুলে ভর্তি করতে গেলে ভর্তি না নিয়ে তালবাহানা শুরু করে।

স্কুলে টয়লেটের সুব্যবস্থা থাকলেও তা আবার পরিস্কার এর অভাবে অকেজো। যার ফলে স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় বিপাকে। শিক্ষা কার্যাক্রমে তার সক্রিয় আগ্রহ না থাকলেও বিদ্যালয়ের উন্নয়নে কখনো সরকারি বরাদ্দ আসলে তা আত্মসাৎ করতে ঠিকই মরিয়া হয়ে উঠেন তিনি। টার্গেট অনুযায়ী বিদ্যালয়ের সরকারি বরাদ্দ আত্মসাৎ করেও আসছেন তিনি এমনটাই দাবী ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকগণ দের। শুধু তাই নয়, স্কুলে সরকারী জাতীয় অনুষ্ঠানও সঠিক ভাবে পালন করেন না তিনি। এতসব করার পরেও যেন কোন এক অদৃশ্য কারণবশত দেখার কেউ নেই। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মাজেদ আলীর এসব কর্মকাণ্ডে বিব্রত ও ক্ষুব্দ অত্র বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ কমিটি।

এই বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মাজেদ আলী কাছে অনিয়মের কথা জিজ্ঞেস করলে কথা না বলে নীরবতা ভুমিকা পালন করেন। পোরশা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানানো হবে, যদি অভিযোগটি সত্যি হয় তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password