স্বাধীন বাংলাদেশের অন্যতম স্বপ্নদ্রষ্টা ছিলেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া

১ জুন (২০২১) মঙ্গলবার অপরাহ্নে তোপখানা রোডস্থ জাতীয় প্রেসক্লাবে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতির উদ্যোগে সংবাদপত্র জগতের পথিকৃৎ, স্বাধীন বাংলাদেশের অন্যতম স্বপ্নদ্রষ্টা ও দৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মোহাম্মদ তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার ৫২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে “মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম ঃ তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া ও দৈনিক ইত্তেফাক এর ভূমিকা” শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। সভাপতিত্ব করেন স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি সাংবাদিক এস. এম. জামাল উদ্দিন। উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মানিক মিয়া ফাউন্ডেশনের মহাসচিব ও রোববার সম্পাদক সৈয়দ তোশারফ আলী, স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি এম. নাসিরুল হক, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কবির কোরাইশী তালুকদার, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক শ্যামল নাথ, ক্বারী মোঃ আবদুল মোমিন, ক্বারী আলমাছ হোসেন গাজীপুরী, সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন কুসুম প্রমুখ। প্রধান অতিথি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, “বাংলাদেশ রচনায় তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার অবদান চিরোজ্জ্বল। তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া ব্যক্তি বা ব্যবসায়িক স্বার্থরক্ষার জন্য সংবাদ মাধ্যমকে ব্যবহার করেননি। তাঁর কাছ থেকে জাতির অনেক কিছু শেখার আছে।

সরকারের সমালোচনা করার আগে বিএনপিকে বিশ্ব গণমাধ্যমে দেশের উন্নয়নচিত্রের দিকে তাকাতে হবে বলে মন্ত্রী অভিমত প্রকাশ করেন।” সভাপতির বক্তব্যে সাংবাদিক এস. এম. জামাল উদ্দিন বলেন,  “স্বাধীন বাংলাদেশের অন্যতম স্বপ্নদ্রষ্টা ছিলেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া। তাঁর বলিষ্ঠ লেখনী বঙ্গবন্ধুকে স্বাধীনতা সংগ্রামে উজ্জীবিত করেছিল। তাই বঙ্গবন্ধু সে সময় সাড়ে সাত কোটি মানুষের নয়নমণি ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সহযোগী শক্তি হিসেবে স্বাধীনতা সংগ্রামে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।” মানিক মিয়া ফাউন্ডেশনের মহাসচিব সৈয়দ তোশারফ আলী বলেন,  “দৈনিক ইত্তেফাক প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সাংবাদিকতাকে অবলম্বন করে সারাজীবন মানিক মিয়া এদেশের মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সম্মুখযোদ্ধা ছিলেন। পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর শোষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ সৃষ্টির লক্ষ্যে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া আমৃত্যু নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন। সেজন্য তিনি বাংলার মানুষের কাছে নির্ভিক সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছিলেন।” আলোচনা সভা শেষে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ক্বারী মোঃ আবদুল মোমিন। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা আলমাছ হোসেন।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password