বাংলা সিনেমার অন্যতম উজ্জ্বল নক্ষত্র সালমান শাহর মৃত্যূ বার্ষিকী আজ

বাংলা সিনেমার অন্যতম উজ্জ্বল নক্ষত্র সালমান শাহর মৃত্যূ বার্ষিকী আজ

আজ থেকে ঠিক ২৫ বছর আগে ১৯৯৬ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর বাংলা সিনেমার অন্যতম উজ্জ্বল নক্ষত্র সালমান শাহ সবার মন খারাপ করে দিয়ে পাড়ি দেন ওপারে। মাত্র ২৫ বছর বয়সেই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন তিনি। সেদিন পুরো চলচ্চিত্র অঙ্গনে নেমে এসেছিল শোকের ছায়া। সালমান আমাদের মাঝে নেই দেখতে দেখতে দুই যুগ হয়ে গেল। দুই যুগ পার হয়ে গেলেও তিনি এখনও বাংলাদেশের দর্শকদের কাছে চির অম্লান। ওই সময়ের দর্শকদের কাছেতো বটেই সালমান ঠিক সমান জনপ্রিয় এই প্রজম্নের দর্শকদের কাছেও।

বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে আলোচিত ও সুদর্শন নায়ক সালমান শাহ। এই জায়য়াগতে নেই কোন বিতর্ক। তিনি দর্শকদের সামনে হাজির হয়েছিলেন নতুনের আবাহন হিসেবে। তার অভিনয়, স্টাইল, ব্যাক্তিত্ব সবকিছুতেই ছিল নতুনত্বের স্বাদ। কাউ বয় হ্যাট, গগলস, লং কোটে ডিটেকটিভ লুক, হুডি শার্ট, ব্যাক ব্রাশ করা চুল, কানে দুল, মাথার স্কার্ফ সালমানে সবকিছু মিলিয়ে এক অদেখা মোহের মাঝে পড়ে গিয়েছিল দর্শকরা। তারুণ্যের স্টাইল আইকন ছিলেন সালমান। সালমানের মৃত্যূর ২৪ বছর পের হয়ে গেলেও তার মতো কেউ আসেনি বাংলা চলচ্চিত্রে। সামনের ২৪ বছরেও আসবে কিনা তা নিয়ে আছে সন্দেহ। মাত্র তিন বছর বড় পর্দায় কাজ করার সুযোগ পেয়েছিলেন সালমান শাহ। এই অল্প সময়েই তিনি দর্শকদের হৃদয় জয় করে একের পর এক উপহার দিয়েছেন সুপারহিট সিনেমা। অভিনয় করেছেন মোট ২৭টি সিনেমায়।

সবার কাছে সালমান ওরফে শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন ১৯৭০ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা কমর উদ্দিন চৌধুরী ও মা নীলা চৌধুরী। সালমান শাহর অভিনয় জীবন শুরু হয় বিটিভিতে অভিনয়ের মাধ্যমে। ১৯৮৫ সালে বিটিভির “ আকাশ ছোঁয়া” নাটকে প্রথম তাকে টিভি পর্দায় দেখা যায়। এরপর অভিনয় করেছেন “দোয়েল”, “সব পাখি ঘরে ফেরে”, “সৈকতে সারস”, “নয়ন” ও “স্বপ্নের পৃথিবী” নাটকে। এছাড়া প্রচুর বিজ্ঞাপনেও কাজ করেছেন তিনি। ১২ আগস্ট ১৯৯২ সালে তিনি তার খালার বান্ধবীর মেয়ে সামিরা হককে বিয়ে করেন।

১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত “কেয়ামত থেকে কেয়ামত” সিনেমার মাধ্যমে বাংলা চলচ্চিত্রে আগমন ঘটে তার। প্রথম সিনেমা দিয়েই বাজিমাত করেন সালমান শাহ। “কেয়ামত থেকে কেয়ামত” ছবিতে অভিনয় করে সারাদেশের সকল শ্রেনীর দর্শকদের হৃদয়ে স্থান করে নেন ক্ষনাজন্মা এই অভিনেতা। কাজ করে গেছেন একের পর এক ব্যাবসা সফল সিনেমাতে। “কেয়ামত থেকে কেয়ামত”, “তুমি আমার” “অন্তরে অন্তরে”, “এই ঘর এই সংসার”, “জীবন সংসার”, “বিক্ষোভ”, “মায়ের অধিকার”, “চাওয়া থেকে পাওয়া”, “সত্যের মৃত্যূ নেই”, “বিচার হবে”, “স্বপ্নের নায়ক”, “স্বপ্নের ঠিকানা”, “প্রেম প্রিয়াসী”, আশা ভালবাসা”, “আনন্দ অশ্রু” সহ মোট ২৭টি ছবিতে অভিনয় করেন সালমান শাহ। সালমান সর্বশেষ অভিনয় করেছেন “বুকের ভিতর আগুন” ছবিতে। সালমান শাহ শাবনুরের সাথে সর্ব্বোচ্চ ১৪টি ছবিতে জুটি বেধে অভিনয় করেছেন।

১৯৯৬ সালে নিজ ঘরে সালমান শাহ'কে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। শুরুতে বিষয়টি আত্মহত্যা বলা হয়। কিন্তু তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেন তার পরিবার। পরিবারের দায়ের করা মামলাটি এখনও আদালতে চলমান। মৃত্যূর এত বছর পরও তাকে চলচ্চিত্র সংশ্লীষ্ট অঙ্গনের কেউ বিন্দুমাত্র ভোলেনি। প্রতি বছর ৬ই সেপ্টেম্বর প্রিয় অভিনেতাকে সবাই গভীর শ্রদ্ধায় স্মরন করেন। তার রুহের মাগফিরাত কামনা করে প্রতিবছর এই দিনে মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password