সিরাজগঞ্জে টানা বর্ষনে নিন্মাঞ্চলে পানি, যমুনাতেও বাড়ছে পানি

সিরাজগঞ্জে টানা বর্ষনে নিন্মাঞ্চলে পানি, যমুনাতেও  বাড়ছে পানি

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জে টানা বর্ষনে নিন্মাঞ্চলের রাস্তা ঘাট এমনকি বাড়িতে ডুকে পড়েছে পানি।ড্রেনেজ ব্যবস্থা বিকল থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। এ দিকে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও টানা বর্ষণে যমুনা নদীর পানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে বিরতিহীন ভাবে বর্ষনের ফলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে সময়ে যমুনা নদী ও তার শাখা নদীসহ খাল বিলেও পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।এ বর্ষণে জনজীবন এখন স্থবির হয়ে পড়েছে।

পৌর এলাকার অনেক জায়গায় বাড়ী ঘর ও রাস্তা ঘাট তলিয়ে যায় হাটু পানির নিচে।অনেক বাসা বাড়ীতে প্রবেশ করে পাানি। ভোগান্তি হতে বাঁচতে অনেকে আবার পানি সেচে বের করে রাস্তায় ফেলেন। ড্রেনেজ ব্যবস্থার খবর রাখেন পৌর কর্তৃপক্ষ। ড্রেন গুলি পরিষ্কার করেন ঠিকই, তবে তা অসময়ে। পৌর শহরের জুবিলী বাগান,ধানবান্ধী,হোসেনপুরসহ বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টির পানি মানুষের বসতবাড়ীতে উঠে পড়ে। সয়াগোবিন্দ প্রামানিক পাড়ায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা লাজুক থাকার কারণে সমস্ত পানি বাড়ীর উপর দিয়ে গিয়ে পুকুরে পড়েছে।

এতে করে বাড়িটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পৌরসভার এক কর্মকর্তা বলেছেন, টানা বর্ষণে শহরের প্রধান সড়কসহ কয়েকটি সড়কে পানি নিষ্কাশনের অধিকাংশ ড্রেন ময়লা আবর্জনা জমে যায়। এ কারণে পানি ঠিকমত নিষ্কাশন হচ্ছে না বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ দিকে কয়েক সপ্তাহ ধরে যমুনায় পানি বৃদ্ধি পেলেও সোমবার পানি সামান্য কমেছিল। ওইদিন মধ্যেরাত থেকে আবারো টানা বর্ষণে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীতে ৩৫ সেন্টিমিটার বেড়েছে। যমুনা নদীর পানি এখন বিপদসীমার অনেক নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। চতুর্থ দফায় যমুনা নদীর পানি বাড়তে থাকায় নদীর তীরবর্তী শাহজাদপুর, চৌহালী, বেলকুচি, কাজিপুর ও সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার চরঞ্চলের নিম্নঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে মৌসুমী রোপা আমন, মাসকালাই ও সবজির ক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসল ডুবে গেছে। তবে এখন বড় ধরণের বন্যার কোন আশংকা নেই বলে জানা গেছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password