আওয়ামী লীগই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে: ফখরুল

আওয়ামী লীগই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে: ফখরুল

বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই সরকার যখনই ক্ষমতায় আসে তখনই মানুষের অধিকার কেড়ে নেয়। গণমাধ্যমের ওপর আক্রমণ করে। সুতরাং এই দানব সরকারকে হটিয়ে দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হবে।

আজ বুধবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে এক আলোচনাসভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, 'সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা বলে আসছেন, বিএনপি নাকি বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে।

কিন্তু আমরা বলব, বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমেরিকা গিয়ে ধরনা দিচ্ছেন। তিনি দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিএনপিকে নির্বাচনে আনার জন্য বলেছেন। অথচ আওয়ামী লীগ সব সময় বলে বিএনপি নাকি বিদেশিদের কাছে ধরনা দেয়। কিন্তু পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে প্রকাশ্যে বলেছেন, দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে হবে।

এতেই প্রমাণিত হয় বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে। ' সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, 'আমরা একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম একটি ন্যায়ভিত্তিক গণতান্ত্রিক দেশ প্রতিষ্ঠার জন্য। কিন্তু আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে তখনই মানুষের অধিকার হরণ করে। গণমাধ্যমের ওপর আক্রমণ করে। এরা সব সময় ঢোল পেটায় যে দেশে অনেক উন্নয়ন হচ্ছে। অথচ দেশের মানুষ না খেয়ে মরছে। ৬০% মানুষ দরিদ্র হয়েছে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক অবনতি হয়েছে। সড়কের নিরাপত্তা নেই। সেতুমন্ত্রী ব্যর্থ হয়েছেন। ' জাগপার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম শফিউল আলম প্রধানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, 'আজকে দেশের সংকট উত্তরণে সমস্ত রাজনৈতিক দলের ঐক্য প্রয়োজন। সেই সাথে গণতন্ত্রের মাতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে নির্বাচন দিতে হবে।

খালেদা জিয়া ভীষণ অসুস্থ। তার জন্য দোয়া করবেন। আমাদের লক্ষ্য ভয়াবহ দানব সরকারকে হটিয়ে দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করা। ' তিনি বলেন, 'আমরা বিএনপিকে ক্ষমতায় বসার কথা বলছি না। আমরা দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলছি। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে একটি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। তাই আমরা বলব, খালেদা জিয়ার মুক্তি দিতে হবে।

মিথ্যা মামলাগুলো দ্রুত প্রত্যাহার করতে হবে। অথচ তারা পুরনো মামলায় আমাদের নেতাদের গ্রেপ্তার করছে। যাতে যারা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন করছে তাদের গ্রেপ্তার করে সাজা দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের নেতা ঢাকা দক্ষিণ সিটির সাবেক মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে। আমি এর তীব্র নিন্দা ও তার মুক্তির দাবি জানাই। ' ড. আবদুল মঈন খান বলেন, 'আজকে দেশ স্বাধীন হওয়ার ৫০ বছর পরও আমাদের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার আন্দোলন করতে হচ্ছে।

তাহলে কেন একাত্তরে লাখ লাখ মানুষকে প্রাণ দিতে হয়েছিল? আসুন আমরা যারা দেশের সমৃদ্ধি ও নিরাপত্তায় বিশ্বাসী, খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করি দেশের স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে এক দফা দাবিতে রাজপথে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করি। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে এই সরকারকে অবশ্যই বিদায় নিতে হবে। ' জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে 'স্বৈরাচার নিপাত যাক-গণতন্ত্র মুক্তি পাক' শীর্ষক আলোচনাসভা ও ইফতার মাহফিল হয়।

জাগপার সভাপতি খন্দকার লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এস এম শাহাদাতের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, জাতীয় পার্টির (জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, এনপিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, ডেমোক্রেটিক লীগের (ডিএল) সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, এনডিপির আবু তাহের, ইসলামী ঐক্যজোটের মওলানা এম এ রকিব, ইসলামিক পার্টির মহাসচিব আবুল কাশেম, পিপলস লীগের মহাসচিব সৈয়দ মাহবুব হোসেন, জাতীয় দলের এহসানুল হুদা, সাম্যবাদী দলের নূরুল ইসলাম প্রমুখ। এ ছাড়া জাগপার ও ২০ দলীয় জোটের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password