বাংলাদেশের অনুরোধে সাড়া দেয়নি টিকটক

বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় বিনোদনমূলক ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ টিকটক। যা ব্যবহার করে অনেক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডও ঘটছে। নীতিমালা লঙ্ঘন ও কমিউনিটি নীতিমালা না মানায় প্রতিদিনই অসংখ্য ভিডিও সরিয়ে দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। যদিও ব্যক্তিগত তথ্য খুব একটা প্রকাশ করে না প্রতিষ্ঠানটি।সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে দুটি অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে তথ্য জানতে চাওয়া হলেও এ অনুরোধে সাড়া দেয়নি টিকটক কর্তৃপক্ষ। তারা কোনো তথ্য দিতে রাজি হয়নি।

মঙ্গলবার টিকটকের মালিক প্রতিষ্ঠান বাইটড্যান্স তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটে একটি ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখা যায়, মোট ৪২টি দেশ টিকটকের কাছে তথ্য চেয়ে অনুরোধ করেছে। তালিকায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।প্রতিবেদনে দেয়া তথ্যানুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) ১০ কোটি ৪৫ লাখ ৪৩ হাজার ৭১৯টি ভিডিও সরিয়ে ফেলেছে টিকটক। সংখ্যাটি উক্ত সময়ে আপলোড হওয়া ভিডিওর এক শতাংশেরও কম।

সবচেয়ে বেশি ভিডিও সরানো হয়েছে ভারতীয়দের। এ সংখ্যাটা তিন কোটি ৭০ লাখের বেশি। যার মধ্যে ৯৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ ভিডিও কোনো অভিযোগ পাওয়ার আগেই সরানো হয়েছে। অবশ্য ভারতে এখন টিকটক নিষিদ্ধ।ব্যবহারকারী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন দেশের সরকারের পক্ষ থেকে আইনি অনুরোধ পাওয়ার হার বেড়ে গেছে উল্লেখ করে টিকটক কর্তৃপক্ষ জানায়, ইতোমধ্যে ৪২টি দেশ থেকে ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়ে এক হাজার ৭৬৮টি অনুরোধ এসেছে। তবে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রকাশ করেনি তারা।

ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা এবং অধিকারকে সম্মান জানিয়ে বৈধ আইন প্রয়োগের অনুরোধগুলো বিবেচনা করা হবে জানিয়ে তারা বলছে, ব্যবহারকারীর তথ্য পেতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে প্রয়োজনীয় আইনি নথি সরবরাহ করতে হবে। বিশেষ করে আদালতের আদেশ, ওয়ারেন্ট। তবে জরুরি ক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়া ছাড়াই মাঝেমধ্যে তথ্য প্রকাশ করা হয়।

মন্তব্যসমূহ (০)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন