শিরোপা লড়াইয়ে টিকে রইলো রিয়াল মাদ্রিদ

লা লিগার আর বাকি চার রাউন্ড। শিরোপা দাবিদারও চার দল। সবার সম্ভাবনা আছে শিরোপা ছুয়ে দেখার। বাকি রাউন্ড গুলোতে পয়েন্ট হারালেই শিরোপা দৌড় থেকে পিছিয়ে পরতে হবে। এমন সমীকরনে কাল রাতে ওসাসুনার বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমনের পসরা বসিয়ে বসে রিয়াল কিন্ত গোলের দেখা পাচ্ছিলনা। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো যাওয়ার পর থেকে রিয়াল মাদ্রিদের এই রুপটা সবার কাছে পরিচিত হয়ে গেছে, গোলের সুযোগ তৈরি হবে কিন্ত গোল হবে না।

শুরুর দিকে হ্যাজার্ডের নেওয়া জোরালো শট পোস্টের অনেক দূর দিয়ে যায়। এছাড়া আসেনসিও ৬ ১৬ মিনিটে দুটি সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। ২৬ মিনিটে মার্সেলোর থেকে হ্যাজার্ডের শট গোলকিপারের হাত ছুঁয়ে বারের ওপর দিয়ে যায়। একটু পরই মিলিতাওর হেড গোলকিপার বাঁ হাত দিয়ে প্রতিহত করে দলকে গোল হজম করতে দেননি। উল্টো প্রথমার্ধের শেষদিকে পিছিয়ে পরেছিল রিয়াল। ৪৪ মিনিটে ওসাসুনার একটি প্রচেষ্টায় বল জাল স্পর্শ করলেও অফসাইডের কারণে গোল হয়নি। এছাড়া তাদের আরও একটি প্রচেষ্টাতেও গোল আসেনি। গোলশূন্য অবস্থায় বিরতিতে যায় দুদল।

বিরতি থেকে ফিরে ওসাসুনাকে চেপে ধরে রিয়াল মাদ্রিদ। ৫৬ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে মিলিতাওর ভলি ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। ৬৮ মিনিটে বক্সের বাইর থেকে রড্রিগোর শট পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। ৭০ মিনিটে হ্যাজার্ডকে তুলে নেন রিয়াল বস জিদান। বদলি নামা ইসকোই ম্যাচের চেহারা বদলালেন। ৭৫ মিনিটে তাঁর নেওয়া কর্নার থেকে আবার হেড মিলিতাওর। ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের হেড এবার আর ঠেকাতে পারেননি এরেরা। গোলটা যে কত গুরুত্বপূর্ণ ছিল সেটি জিদানের উচ্ছাস দেখেই টের পাওয়া গেছে। সাধারণত ডাগআউটে করতালিতে গোল উদ্‌যাপন করা রিয়াল কোচকে আজ ছুটতে দেখা গেছে! ম্যাচের ৮০ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মিডফিল্ডার কাসেমিরো। এরপর আরো সুযোগ পেয়েছিল জিদান শিষ্যরা কিন্ত সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যার্থ হলে দুই গোলের জয় নিয়েই সন্তষ্ট থাকতে হয় রিয়াল মাদ্রিদকে।

এই জয়ের ফলে ৩৪ ম্যাচে ৭৪ পয়েন্ট নিয়ে পয়েট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রইলো রিয়াল। সমান ম্যাচে ৭৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। এক ম্যাচ কম খেলে বার্সেলোনার সংগ্রহ ৭১ ও সেভিয়ার সংগ্রহ ৭০ পয়েন্ট।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন