আন্তর্জাতিকভারত

অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিলো ভারত

ধর্মীয় সহিংসতার শিকার হয়ে ভারতে আসা অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে দেশটির লোকসভায় একটি বিল পাস হয়েছে। বিতর্কিত এই বিল আইনে পরিণত হলে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে আশ্রয় নেয়া অমুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজনদের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হবে।

অমুসলিম শরাণার্থীদের ওই তালিকায় হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সি, শিখ এবং খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের মানুষজনকে রাখা হয়েছে।

লোকসভায় এই বিল উত্থাপনের পর থেকেই দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং মঙ্গলবার সংসদে বলেন, সহিংসতার শিকার হয়ে ২০১৪ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সি, শিখ এবং খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের যেসব মানুষ ভারতে এসেছেন, তাদের নাগরিকত্ব দেয়া হবে।

এদিকে সংশোধিত আইনে ১২ বছর ভারতে বসবাস করার পরে নাগরিকত্ব পাওয়ার যে নিয়ম ছিল, সেটাও কমিয়ে সাত বছর করা হয়েছে।

অন্যদিকে সোমবারই এই ইস্যুতে আসাম সরকারের বিজেপির শরিক আসাম গণপরিষদ জোট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে। কিন্তু সবকিছু উপেক্ষা করে মঙ্গলবার ঠিকই লোকসভায় এই বিল পাস করিয়েছে মোদি সরকার।

সমালোচকদের দাবি, এমন আইন প্রতিবেশী দেশগুলোর সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে ভুল বার্তা পাঠাবে। এমনকি দলে দলে লোক ভারতে এসে নাগরিকত্ব দাবি করতে পারে বলেও তারা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন।

ভারতের প্রধান রাজনৈতিক দল কংগ্রেসসহ অন্যান্য বামপন্থী দলগুলো এই বিলের সমালোচনায় মুখর হয়েছে। তাদের যুক্তি, কোনও নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের বাইরের লোকদের নাগরিকত্ব দেয়ার এমন আইন আদতে ভারতের সংবিধানের মূলনীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

উল্লেখ্য, ভারতের নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫ সালে পাস হয়। কিন্তু এখন যদি এই আইন সংশোধন করা হয়, তাহলে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে প্রতিবেশী দেশে ধর্মীয় সহিংসতার শিকার হয়ে ভারতে প্রবেশকারী অমুসলিম লোকজনকে নাগরিকত্ব দিতে পারবে দিল্লি।

Close