যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা

মঙ্গলবার (১ মে) রাতে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের উত্তর বাঞ্চানগর এলাকায় শ্বশুর বাড়িতে শাহিনুর আক্তার শানু নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। লক্ষ্মীপুরে যৌতুকের টাকার জন্য শাহিনুর আক্তার শানু নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার (৪ জুন) বিকেলে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহিনুর আক্তার শানু মারা যান। ঘটনার পর থেকেই তার স্বামী মো. হান্নান ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার।

নিহত শাহিনুরের পরিবার জানায়, ৫ বছর আগে উত্তর বাঞ্চানগর এলাকার খোরশেদ আলমের ছেলে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালক হান্নানের সঙ্গে শাহিনুরের বিয়ে হয়। শাহিনুর একই এলাকার দুলাল মিয়ার মেয়ে। সম্প্রতি বিদেশ যাওয়ার জন্য শ্বশুর বাড়ি থেকে হান্নান ও তার পরিবার এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় ঘটনার রাতে শাহিনুর ও হান্নানের মধ্যে বাগবিতন্ডা হয়।

একপর্যায়ে হান্নান তাকে মারধর ও শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা চালায়। এতে শাহিনুর অচেতন হয়ে যায়। পরে মৃত ভেবে শাহিনুরকে ফেলে রেখে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। সাড়া শব্দ না পেয়ে প্রতিবেশি লোকজন ঘরে ঢুকে আহত অবস্থায় শাহিনুরকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শুক্রবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহিনুর হাসপাতালে মারা যায়।

হাসপাতালে নিহত শাহিনুরের বাবা দুলাল মিয়া ও চাচাতো ভাই জামাল হোসেন গণমাধ্যমকে জানায়,  হান্নান বিদেশ যাওয়ার জন্য ১ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেছে। অস্বচ্ছলতার কারণে তাকে টাকা দিতে অপারগতা জানানো হয়। এ ঘটনায় স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। হত্যার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেছেন তারা।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, শাহিনুরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছেম গলায়ও আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহিনুর মারা গেছে।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মতিন বলেন, নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password