ধর্ষণের শিকার হয়ে কীটনাশক খেল মাদরাসাছাত্রী

ধর্ষণের শিকার হয়ে কীটনাশক খেল মাদরাসাছাত্রী

প্রেমিকের ধর্ষণের শিকার এক মাদাসাছাত্রী (২০) কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) বগুড়ার শাজাহানপুরে সকাল ১০টার দিকে নিজ বাড়িতে বিষপান করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে তিনি বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এর আগে সোমবার ধর্ষণের ঘটনায় শাজাহানপুর থানায় মামলা করেন মেয়েটির মা।

মামলার পরপরই প্রেমিক মো. রিফাতকে (১৬) গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। প্রেমিক রিফাত বয়সে মেয়েটির চেয়ে ছোট। রিফাত উপজেলার আমরুল ইউনিয়নের ডেমাজানী গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। সে ডেমাজানী শহীদ মোখলেছার রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার শেরপুর উপজেলার কানুপুর গ্রামের আলিম শ্রেণিপড়ুয়া এক মাদরাসাছাত্রীর সাথে ১ বছর যাবদ রিফাতের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

গত শনিবার সকালে রিফাত ওই মেয়েটিকে ডেকে এনে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে ওই মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। বিকেলে ছেলের স্বজনেরা ওই বাড়িতে ছেলে-মেয়ের অবস্থান জানতে পেরে সেখান থেকে ছেলেকে নিয়ে যান। পরে মেয়েটি বাড়ি ফিরে বাবা-মাকে ঘটনা খুলে বলে।

পরে মেয়ের মা বাদী হয়ে শাজাহানপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। মেয়ের মা জানান, রিফাতের জন্যই তার মেয়ে বিষপান করে (দানাদার কীটনাশক ও তারফিন) আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। বিষপান করে অসুস্থ হয়ে পড়লে সাথে সাথে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার মেয়ের এই অবস্থার জন্য রিফাতই দায়ি। শাজাহানপুর থানার ওসি (তদন্ত) নান্নু খান জানান, মামলা দায়েরের পরপরই রিফাতকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password