ওয়াসার এমডি অফিস করে বিদেশ বসে

ওয়াসার এমডি অফিস করে বিদেশ বসে

মানূষের জীবনে অন্যতম গুরুত্বপুর্ণ খাবারের নাম পানি, যা মানুষের জীবন বাচায়। আর রাজধানী ঢাকার মানুষকে এই পানি যে সংস্থা সরাবরাহ করে তার নাম ওয়য়াসা।তাই  রাজধানীর বাসিন্দাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা হলো ঢাকা ওয়াসা। আর এই সংস্থা’র শীর্ষ পদে দায়িত্বে থাকা ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী তাকসিম এ খান বিদেশ বসেই অফিস করছেন। 

চলতি বছরের ২৫ এপ্রিল থেকে ২৪ জুলাই তিন মাস (প্লাস ট্রানজিট) যুক্তরাষ্ট্র থেকে অনলাইনে অফিস করেন প্রকৌশলী তাকসিম এ খান। এবার যুক্তরাজ্য থেকে ২ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত অনলাইনে অফিস করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা ওয়াসার এমডি তিন মাসের ছুটি কাটানোর সময়ে বিদেশ বসে অফিসের কাজ করায় পরিচালনা পর্ষদের সভায় প্রশ্ন উঠেছে। সেই প্রশ্নের মুখে আবারও যুক্তরাজ্যে বসেই অফিস করছেন তাকসিম এ খান।

জানা গেছে, ২ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালে প্রকৌশলী তাকসিম এ খান অনলাইনে যে কোনো পলিসি এবং অন্যান্য বিষয়ে ই-নোটিশ, ই-জিপি, ই-মেইলে, ফেসটাইম, ভাইভার, হোয়াটস অ্যাপ এবং ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব সম্পাদন করবেন।

বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কর্তৃক লন্ডনে ৪ নভেম্বর এবং ম্যানচেস্টারে ৮ নভেম্বর দুই দিনব্যাপী আয়োজিত ইনভেস্টর সামিট অন বাংলাদেশ ইকোনোমি অ্যান্ড ইটস ক্যাপিটেল মার্কেটস ইন দ্যা ইউকে শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন ঢাকা ওয়াসার এমডি। এসব অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য বর্তমানে তিনি লন্ডনে অবস্থান করছেন।

ঢাকা ওয়াসা সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাজ্যে অবস্থানের বিষয়ে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান নিজেই একটি অফিস আদেশ জারি করেন গত ২৮ অক্টোবর।

সূত্রটি জানায়, জারি করা আদেশে প্রকৌশলী তাকসিম এ খান উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কর্তৃক লন্ডনে ৪ নভেম্বর এবং ম্যানচেস্টারে ৮ নভেম্বর মোট দুই দিন মেয়াদে আয়োজিত ইনভেস্টর সামিট অন বাংলাদেশ ইকোনোমি অ্যান্ড ইটস ক্যাপিটেল মার্কেটস ইন দ্যা ইউকে শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য ২ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত আমি যুক্তরাজ্যে অবস্থান করব। যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালীন সময় আমি নিজে যেকোনো পলিসি এবং অন্যান্য বিষয়ে ই-নোটিশ, ই-জিপি,ই-মেইলে, ফেসটাইম, ভাইভার, হোয়াটস অ্যাপ এবং ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব সম্পাদন করব। আমার যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালীন সময়ে ঢাকা ওয়াসার স্ব স্ব উইং প্রধানগণ তাদের নিজ নিজ উইংয়ের রুটিন কার্যাদি সম্পাদন করবেন এবং সার্বক্ষণিক আমার সঙ্গে যোগাযোগ রাখবেন।

অফিস আদেশে তিনি আরও উল্লেখ করেন, এ সময়ে কাজের সুষ্ঠু ধারাবাহিকতার স্বার্থে ওয়াসার পরিচালক (উন্নয়ন) প্রকৌশলী আবুল কাশেম ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পক্ষে উপস্থিত থেকে বিভিন্ন সভায় তার (এমডির) প্রতিনিধিত্ব করবেন অথবা প্রতিনিধি নির্বাচন এবং দৈনন্দিন দাপ্তরিক কার্য সম্পাদন করবেন।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ১১ জুন থেকে ১০ জুলাই পর্যন্ত ছুটিতে যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন তাকসিম এ খান। সেবারও একই কাজ করেছিলেন ওয়াসার এমডি। যুক্তরাষ্ট্রে বসেই নথিপত্রে স্বাক্ষরসহ সব কার্যক্রম পরিচালনা করেছিলেন। আর যাঁকে রুটিন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, তার কাজ শুধু চিঠিপত্র আদান-প্রদানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password