সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার শপথ

সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার শপথ

বর্তমান সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকার শপথ নিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, নেতাকর্মীরা সাহসের সঙ্গে রাজপথে নেমেছে। এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। এটা বিএনপির একার আন্দোলন নয়। এটা দেশকে বাঁচানোর আন্দোলন। বাংলাদেশের মানুষের ধৈর্য্যের বাধ ভেঙে গেছে। তাই এই সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত সবাইকে রাজপথে থাকতে হবে।

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর মহাখালী গাউসুল আজম জামে মসজিদ সংলগ্ন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। জ্বালানি তেল, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি ও বিভিন্ন জায়গায় তিন নেতাকর্মী হত্যার প্রতিবাদে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপির উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব আমিনুল হকের পরিচালনায় বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান রতন, সরাফত আলী সপু, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বিকাল তিনটায় এ সমাবেশ শুরু হওয়ার আগে গুলশান, বনানী থানার বিভিন্ন ওয়ার্ড বিএনপির নেতাকর্মীরা বাঁশ হাতে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্থানে জড়ো হয়। বাঁশের লাঠির মাথায় জাতীয় পতাকা লাগিয়ে মিছিল করেন তারা। বাঁশ হাতে সমাবেশে আসার কারণ জানতে চাইলে নেতাকর্মীরা জানান, মহানগর উত্তরের প্রায় সব কমসূচিতেই সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা হামলা করেছে। তাই এবার নিজেদের আত্মক্ষার জন্য বাঁশের লাঠি নিয়ে সমাবেশে এসেছেন।

আওয়ামী লীগের মিছিল দেখা না গেলেও গুলশান-১ চত্বর ও মহাখালী এলাকায় তারা অবস্থান নিয়ে মিছিল করেন। বিএনপি নেতা খসরু বলেন, আওয়ামী লীগের হাতে এখন মাত্র একটি অপশন, সেই অপশনটা হলো ভয়ভীতি সৃষ্টি করে ক্ষমতা দখল করা। কিন্তু আমরা ভয়-ভীতি পার করে এসেছি। দেশের প্রত্যেক গ্রামেগঞ্জে, থানা-উপজেলা ও শহরে মানুষ নেমে গেছে। এই আন্দোলন দেশ বাঁচাও, গরিব বাঁচাও আন্দোলন। ফয়সালা হবে রাজপথে, আমরা কেউ ফিরে যাবো না।

তিনি অভিযোগ করেন, বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে না পেরে সন্ত্রাসীদের মাঠে নামিয়েছে। পুলিশের একাংশ, একটি ক্ষুদ্র অংশ সংবিধানকে না মেনে এই সরকারের অপকর্মকে প্রতিষ্ঠা করছে। তারা আওয়ামী লীগের নেতা হতে চাইছেন। তবে এই বাহিনীর বেশিরভাগ সদস্য সংবিধানের প্রতি দায়বদ্ধ, তারা জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবে না।

গত শনিবার রাজধানীর বনানীতে হামলায় আহত বিএনপির নির্বাহী সদস্য তাবিথ আউয়াল হাতে ও মাথায় ব্যান্ডেজ বেঁধে সমাবেশে উপস্থিত হয়ে তার বক্তব্যে বলেন, আন্দোলনের যুদ্ধের মাঠে সবার সঙ্গে আছি। এ কথা বলতেই আজ এখানে এসেছি। আহত করে দমিয়ে রাখা যাবে না। এখন আর কারও কাছে বিচার চাইবো না, বিচার চেয়ে লাভ নেই। বিচার করবে দেশের জনগণ।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password