রাশিয়ার জ্বালানি তেল আমদানি করলে যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তি নেই

রাশিয়ার জ্বালানি তেল আমদানি করলে যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তি নেই

প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেছেন, ‘খাদ্যপণ্য, সার ও জ্বালানির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই বলে দেশটির আন্ডার সেক্রেটারি জানিয়েছেন। তাই রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আমদানি করলে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো আপত্তি থাকার কথা নয়। ’ আজ বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব তথ্য জানান।

জ্বালানি উপদেষ্টা বলেন, যক্তরাষ্টের আন্ডার সেক্রেটারি সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। আমি জানতে চেয়েছি রাশিয়া থেকে তেল আমদানিতে কোনো বাধা আছে কিনা- তিনি জানান, তেল, সার ও খাদ্যের ওপর যুক্তরাষ্টের কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। ফলে আমরা ধরেই নিতে পারি রাশিয়া - অন্যান্য থেকে তেল আমদানি করতে কোনো সমস্যা নেই।

তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, আমরা মনে করি বাইরে থেকে জ্বালানি তেল আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্র আমাদের সমর্থন করবে। জ্বালানি তেল ব্যবহারে যে সব কৃচ্ছতা আমরা নিচ্ছি তাতে আপনারা সহযোগিতা করবেন। জ্বালানি উপদেষ্টা বলেন, বিকল্প কোনো দেশ থেকে ডিজেল আমদানি করা হলে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন পাওয়া যেতে পারে। তেলের আন্তর্জাতিক বাজার জটিল। এর সাথে ভূ-রাজনীতির সম্পর্ক আছে।

কেবল বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের সব দেশেই জ্বালানির দাম বেড়েছে। তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী আরো বলেন, পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার প্রয়োজনীয় সবকিছু করছে। সরকার দেশীয় গ্যাসের উৎপাদন বাড়াতে নতুন কূপ খনন ও অনুসন্ধানের চেষ্টা চালাচ্ছে। সব পক্ষ চাইলে অবাধ ও সুষ্ঠু গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব, যার বড় প্রমাণ সাম্প্রতিক সময়ে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন ভোট।

যুক্তরাষ্ট্র সফরে দেশটির নীতিনির্ধারকদের এমনটি জানিয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা । আগামীতে জ্বালানি তেলের দাম কমবে কি না- সেটা আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password