বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সামরিক কূটনীতির প্রয়োজনীয়তা

বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সামরিক কূটনীতির প্রয়োজনীয়তা

লেখক, জুবেদা চৌধুরী: সামরিক কূটনীতি দীর্ঘকাল ধরে আন্তর্জাতিক কূটনীতির একটি অপরিহার্য উপাদান এবং একটি কার্যকর পদ্ধতি, দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য। সামরিক প্রশিক্ষণ সহযোগিতা সামরিক কূটনীতির একটি অপরিহার্য উপাদান এবং অন্যান্য দেশের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

এই ধরনের সহযোগিতা কৌশলগত নিরাপত্তা সম্পর্ক জোরদার করতে এবং সাধারণ নিরাপত্তা উদ্বেগগুলিকে মোকাবেলা করতেও সাহায্য করে। বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দুই প্রতিবেশী দেশ যার ২৭১ কিলোমিটার আন্তর্জাতিক সীমানা রয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের ১৩ জানুয়ারি মিয়ানমার বাংলাদেশকে একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৭৩ সালের ১৩ আগস্ট বাংলাদেশ ও বার্মার মধ্যে একটি সাধারণ বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

সীমান্ত বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা শুরু করার জন্য জুন ১৯৮৯ সালে তিনটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিল। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ও বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। মিয়ানমারে, একটি দেশ যেটি কয়েক দশক ধরে সামরিক শাসিত ছিল, অন্যান্য দেশের সাথে সামরিক-সামরিক মিথস্ক্রিয়া গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীকেও তাতমাডোর সাথে সম্পর্ক জোরদার করা উচিত। অভিন্ন দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ নিশ্চিত করার জন্য মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকেও বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর সাথে তাদের সম্পর্ক জোরদার করা উচিত। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী তাদের সম্পর্কের পরিধি প্রসারিত করতে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাথে একত্রে কাজ করতে পারে এবং বিদ্রোহ দমন, সন্ত্রাসবাদ, বাংলা ভাষার দক্ষতা, বার্মিজ-ভাষার দক্ষতা, যৌথ নৌ ও বিমান মহড়া এবং বুদ্ধিমত্তার মতো ক্ষেত্রে গভীর সহযোগিতা অন্বেষণ করতে পারে।

বঙ্গোপসাগর অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী এবং অপ্রথাগত হুমকি মোকাবেলায় অংশীদারিত্ব করা। দুই সামরিক বাহিনী প্রশিক্ষণ বিনিময়, গোয়েন্দা তথ্য ভাগাভাগি, অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা, মাদক পাচার, মানব পাচার ইত্যাদির মতো আন্তঃসীমান্ত অপরাধ মোকাবেলায় মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তে যৌথ টহল দেওয়ার মতো সহযোগিতা জোরদার করতে পারে। বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সামরিক প্রতিনিধি বিনিময় পরস্পরের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বিরোধ নিষ্পত্তির পথ প্রশস্ত করতে পারে।

উভয় পক্ষই কিছু সাধারণ দ্বিপাক্ষিক সমস্যা মোকাবেলা করার জন্য তাদের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা বিনিময় এবং শেয়ার করতে পারে। দুই-সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে সামরিক প্রশিক্ষণ বিনিময় উভয় পক্ষের অপারেশনাল সক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। সম্মিলিত সামরিক মহড়া, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা অভিযান (ইউএনপিকেও) প্রশিক্ষণ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সহযোগিতা, বিনিময় কর্মসূচি, সিনিয়র পর্যায়ের সফর এবং চিকিৎসা সহযোগিতা, ক্রীড়া ইভেন্ট, দুঃসাহসিক কার্যক্রম, সামরিক পর্যটন, যৌথ সাইক্লিং অভিযান এবং দুঃসাহসিক প্রশিক্ষণ হচ্ছে সহযোগিতার কিছু ক্ষেত্র।

উদাহরণস্বরূপ, বাংলাদেশের তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ২০১৯ সালে মিয়ানমারে তার চার দিনের সফর শুরু করেছিলেন। সফরের উদ্দেশ্য ছিল উভয় দেশের বিদ্যমান সামরিক সম্পর্ক উন্নত করা এবং প্রত্যেকের সাথে সহযোগিতার সুযোগ খুঁজে বের করা। জেনারেল আজিজের মিয়ানমার সফর ছিল পাঁচ বছরেরও বেশি সময় পর বাংলাদেশের একটি উচ্চ-প্রোফাইল সামরিক সফর।

বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান জেনারেল ইকবাল করিম ভূঁইয়া ২০১৪ সালে দুই দেশের মধ্যে আন্তঃসীমান্ত অপরাধ এবং মানব পাচারসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে মিয়ানমার সফর করেন। বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল মুহাম্মদ এনামুল বারী পাঁচজন কর্মকর্তাসহ ২০১৯ সালে মায়ানমারের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন।

অন্যদিকে, সোশ্যালিস্ট রিপাবলিক অব দ্য ইউনিয়ন অব বার্মা (মিয়ানমার) এর প্রেসিডেন্ট ইউ নে উইন ১৯৭৪ সালের ২৬ এপ্রিল ঢাকায় আসেন একটি চার দিনের সরকারী সফরের জন্য। বিমানবন্দরে তাকে অভ্যর্থনা জানান বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদুল্লাহ এবং প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

মায়ানমার বিমান বাহিনীর তৎকালীন কমান্ডার ইন চিফ, লেফটেন্যান্ট জেনারেল মিয়াত হেইন, ২০১১ সালে বাংলাদেশে ছয় দিনের সফরে ঢাকায় এসেছিলেন। তবে, এই ধরনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সফর মিয়ানমার ও বাংলাদেশ উভয়ের জন্যই সম্পর্ক জোরদার করার জন্য অপরিহার্য।

আরও ভালো হবে দ্বিপাক্ষিক বোঝাপড়ার জন্য। মিয়ানমারের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা অতীতে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান যেমন ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ এবং ডিফেন্স সার্ভিস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজে (ডিএসসিএসসি) অংশগ্রহণ করেছিল। কিন্তু দিপাক্ষিক স্বার্থ নিশ্চিত করার জন্য এই প্রশিক্ষণ বিনিময় পুনরায় চালু করতে হবে। সুতরাং, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের উচিত সক্রিয়ভাবে একে অপরকে আরও প্রশিক্ষণ সুবিধা প্রদান করা।

দুই সামরিক বাহিনীর যৌথ উদ্যোগ দুই প্রতিবেশীর মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করার পথ প্রশস্ত করতে পারে। বাংলাদেশের সামরিক বাহিনী এবং মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর মধ্যে উন্নত সম্পর্ক দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত সমস্যা যেমন বর্তমানে বাংলাদেশে বসবাসকারী রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের সংকট, সমুদ্রসীমা বিরোধ, সীমান্ত-সম্পর্কিত আন্তঃসীমান্ত অপরাধের মতো সমস্যার সমাধান করে সম্পর্ককে মসৃণ করতে পারে। মূলত, মিয়ানমার ও বাংলাদেশ উভয় দেশের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের ঘন ঘন সফর, প্রশিক্ষণ এবং যৌথ মহড়া বিনিময় হওয়া উচিত।

এগুলো অবিশ্বাস কমাবে এবং আত্মবিশ্বাস ও বোঝাপড়া বাড়াবে। এটি এই অঞ্চলে দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকট সমাধানে সহায়তা করতে পারে। পরিবেশগত বিষয়গুলোতে, বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার উভয়েরই বৈশ্বিক মঞ্চে নিশ্চিত করা উচিত যে জলবায়ু সম্মেলনগুলি কেবল জলবায়ু সমস্যাগুলির উপরই পুরোপুরি ফোকাস করবে না, বরং বাস্তবিকভাবে প্রযোজ্য ব্যবস্থা গ্রহণ এবং একটি গঠনমূলক কাঠামো নির্ধারণ করা উচিত পরিবেশগত সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য।

বাংলাদেশের জন্য, একমাত্র প্রাসঙ্গিক বিষয় যা বিবেচনায় নেওয়া উচিত তা হল মিয়ানমারের মধ্যে বাংলাদেশের জন্য প্রচুর অর্থনৈতিক সুযোগ রয়েছে। মিয়ানমারের ক্ষমতায় যেই থাকুক না কেন বাংলাদেশকে অবশ্যই মিয়ানমারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। মায়ানমারের সংসদে সামরিক ব্যবস্থা অত্যন্ত শক্তিশালী। মায়ানমারে সামরিক বাহিনী যে সরকার চালাচ্ছে , সেই সরকারের সাথে বাংলাদেশের নিজেদের স্বার্থেই সম্পর্ক গড়া উচিত কারণ দিনশেষে বাংলাদেশকেই তার সম্স্যার সমাধান করত হবে।

বাংলাদেশের জন্য মিয়ানমারে রপ্তানি ও বিনিয়োগ করে বিলিয়ন বিলিয়ন আয়ের সুযোগ রয়েছে। তাই মিয়ানমারের পাঁচটি প্রতিবেশীর মধ্যে একটি হওয়ায় বাংলাদেশের উচিত এ ধরনের সুযোগগুলো গ্রহণের চেষ্টা করা, মিয়ানমারের সঙ্গে তার সম্পর্ক জোরদার করা এবং বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সামরিক কূটনীতির মাধ্যমে মিয়ানমারের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা থেকে উপকৃত হওয়া উচিত।

বাংলাদেশ এবং মায়ানমারের মতো দেশগুলি, যারা জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে বড় শিকার এবং এখনও সবচেয়ে খারাপ শিকারের জন্য অপেক্ষা করছে, তারা বিশ্বব্যাপী পরিবেশগত অবনতির সমস্যাগুলি মোকাবেলায় একসাথে কাজ করতে পারে। দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতার প্রধান সমস্যা ছাড়াও, পরিবেশগত অবনতির প্রতি বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের দুর্বলতা খুবই উদ্বেগজনক।

মূলত, মিয়ানমার এবং বাংলাদেশের সামরিক বাহিনী যৌথ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থা, অপারেশন, উদ্যোগের মাধ্যমে আঞ্চলিক পরিবেশগত বিপর্যয়ের ঝুঁকি কমাতে একসঙ্গে কাজ করতে পারে। ২০০৮ সালে ঘূর্ণিঝড় নার্গিস এটি বোঝার সেরা উদাহরণ। এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে উপকূলীয় দেশ দুটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পরিবেশ বিপর্যয়ের ঝুঁকি ও ক্ষতি কমাতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশ উভয়েরই একসঙ্গে কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে।

দুই দেশের সম্পর্ক হলো বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের দুই প্রান্তের সাধারণ মানুষের আন্তঃসীমান্ত যোগাযোগ। দুই সার্বভৌম দেশের মধ্যে জনগণের সাথে জনগণের সংযোগকে একত্রে অগ্রসর হওয়ার এবং সংশ্লিষ্ট দেশের মধ্যে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার সবচেয়ে কার্যকর উপায় করতে হবে। এই ফ্যাক্টরটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ যখন সংশ্লিষ্ট দেশগুলো প্রতিবেশী হয়। বাংলাদেশ ও মিয়ানমার উভয় দেশের জনগণের মধ্যে একটি মসৃণ ও প্রাণবন্ত সম্পর্ক থাকতে হবে। মূলত, উভয় সামরিক বাহিনী একে অপরের সাথে ব্যবসা- বাণিজ্যের প্রচার করতে পারে।

মিয়ানমারের অন্যতম নিকটতম প্রতিবেশী হওয়ায় উভয় দেশেরই একে অপরের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা উচিত। সন্ত্রাসী, মানব পাচারকারী, অবৈধ মাদক ব্যবসায়ী অপরাধীদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির আশ্বাস দিয়ে মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর সাথে সম্পর্ক উন্নয়নে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর উচিত সম্পর্ক জোরদারে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া। দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে সামরিক সম্পর্ক শান্তি, সম্প্রীতি, আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা, আঞ্চলিক বৃহত্তর স্বার্থ ইত্যাদি নিশ্চিত করতে পারে দক্ষিণ এশিয়া এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অঞ্চলের রাষ্ট্রগুলোর জন্য।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password