নওগাঁর মান্দায় এক সন্তানের জননী গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার

নওগাঁর মান্দায় এক সন্তানের জননী গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার

নওগাঁর মান্দায় পুলিশ অভিযানে এক সন্তানের জননী মুক্তা খাতুন (২১) নামে এক গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করেছেন। এঘটনায় নিহত গৃহবধূর স্বামী রনি হোসেন (২৫) কে গ্রফতার করে সোমবার বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে নওগাঁ জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

এরপূর্বে রবিবার দিবাগত রাতে খবর পেয়ে মান্দা থানা পুলিশ মৈনম ইউনিয়নের ইটাখোড় গ্রাম থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেন। নিহত গৃহবধূ মুক্তা খাতুন মান্দা উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের ইটাখোর গ্রামের স্বামী রনি হোসেন (২৫) এর স্ত্রী। নিহত গৃহবধূ মুক্তা খাতুন পাশ্ববর্তী মহাদেবপুর উপজেলা ঈশ্বর লক্ষ্মীপুর গ্রামের জৈনক মাবুদ হোসেন এর মেয়ে। ঘটনায় নিহত গৃহবধূর মা রোকেয়া বেগম বাদী হয়ে নিহতের স্বামী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে মান্দা থানায় মামলা করেন।

নিহত মুক্তা খাতুনের মা রোকেয়া বেগম বলেন, প্রায় ৪ বছর আগে মেয়ে মুক্তাকে ইটাখোর গ্রামের ইব্রাহীম হোসেনের ছেলে রনির সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়। মেয়ের সুখের কথা ভেবে বিয়ে সময় ও পরে দু’দফায় জামাই রনি হোসেনকে এক লাখ টাকা যৌতুক দেয়া হয়। এরপরও বিভিন্ন সময় মেয়েকে নির্যাতন করে আসছিল জামাই ও তাঁর পরিবারের লোকজন। এসব নির্যাতন সইতে না পেরে মেয়ে মুক্তা আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগ এনে মুক্তা খাতুনের স্বামী রনি হোসেন ও শাশুড়ি সাজেদা বেগমের বিরুদ্ধে রবিবার রাতেই মান্দা থানায় মামলা করা হয়েছে।

এবিষয়ে মান্দা থানার ওসি শাহিনুর রহমান বলেন, গৃহবধূ মুক্তা খাতুনের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় নিহতের মা বাদী হয়ে জামাই ও বেয়ানের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। মামলার প্রধান আসামি রনিকে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে সোমবার নওগাঁ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password