নওগাঁয় কালবৈশাখীর তাণ্ডবে গাছপালা আম ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

নওগাঁয় কালবৈশাখীর তাণ্ডবে গাছপালা আম ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

নওগাঁয় কালবৈশাখীর তাণ্ডবে গাছপালা আম ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টা থেকে শুরু হয় এই তাণ্ডব। এমন দুর্যোগে ফসলের ক্ষতি হওয়ায় কৃষকের চোখে-মুখে এখন হতাশার ছাপ।

আজ শনিবার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে জেলার বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়, প্রায় পৌনে এক ঘণ্টার দমকা ঝড়ো হাওয়া ও শিলাবৃষ্টির সঙ্গে প্রবল বৃষ্টিতে জেলায় ফসলের ও ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। কালবৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়েছে জেলার সাপাহার, পত্নীতলা, মান্দা, বদলগাছী উপজেলার শতাধিক গ্রাম। কোথাও কোথাও বজ্রপাতও হয়েছে। ঘরের চালা উড়ে গেছে। অনেক কাঁচা-পাকা ঘর ভেঙে গেছে। এ ঝড়-বৃষ্টিতে আম, ধান, ভুট্টা,কলাসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কৃষকরা তাদের ক্ষতিগ্রস্ত ফসল রক্ষার জন্য দিনভর কাজ করছেন। কারও কষ্টের ফসলের নুইয়ে পড়া ও আম ঝড়ে যাওয়া দেখে মুখ ভার, কারও-বা এখান থেকে বাকিটুকু পরিচর্যা করার চেষ্টা।

নওগাঁ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক একে এম মোরশেদ জানান, শহরের বিভিন্ন জায়গায় রাস্তায় গাছ ভেঙে ও বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে পড়ে গেছে। রাত সাড়ে ৯টার পর থেকে ঝড়ে বিভিন্ন জায়গায় বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে যাওয়ায় এখন পর্যন্ত (দুপুর দেড়টা পর্যন্ত) অর্থাৎ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জেলায় বেশ কিছু উপজেলায় কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ আছে। এ ছাড়াও ধামইরহাট,পত্নীতলা,বদলগাছী ও পোরশা উপজেলায় ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপপরিচালক সামসুল ওয়াদুদ জানান, ঝড়ো হাওয়া ও শিলাবৃষ্টিতে জেলায় বোরো ধান ৩৪ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমির ধান নুয়ে পড়েছে, আম ১০ হাজার ৫৬৫ হেক্টর ৫ শতাংশ আম ঝড়ে পড়েছে, কলা গাছ ৩৫ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে, শাকসবজি ২৭ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)