এখনো বেতন-বোনাস পায়নি অর্ধেক গার্মেন্ট শ্রমিকরা

এখনো বেতন-বোনাস পায়নি অর্ধেক গার্মেন্ট শ্রমিকরা

ঈদের আগে গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দেওয়ার কথা থাকলেও চলতি এপ্রিল মাসের বেতন এবং ঈদ বোনাস দিতে পারেনি অর্ধেক গার্মেন্টস কারখানা। এমনটিই জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা। গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দেওয়ার জন্য সময় আছে আর মাত্র হাতে গোনা তিনটি দিন।

বুধ-বৃহস্পতি এবং আগামী শনিবার বিশেষ ব্যবস্থায় ব্যাংক খোলা রেখে দেওয়া হবে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস। তবে বিজিএমইএ নেতারা বলছেন, এবার ঈদের আগে বেতন-বোনাস দেওয়া নিয়ে কোনো সংকট নেই। এখনো পর্যন্ত সুন্দরভাবে বেতন-বোনাস দেওয়া হচ্ছে। দুই একটি কারখানায় ছাড়া তেমন কোনো সংকট নেই।

এদিকে ঢাকার উত্তরার ইন্ট্রাকো গার্মেন্টসের দুটি কারখানার প্রায় ১১০০ শ্রমিকের বেতন-বোনাস জটিলতা অবশেষে কাটলো। গত কয়েক দিন ধরে এই কারখানার শ্রমিকরা আন্দোলন করছিলেন বেতন-বোনাসের দাবিতে। কারখানার মালিক কর্তৃপক্ষ মার্চ মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস না দিয়েই কারখানা দুটি বন্ধ করে দেয়। এতে ঈদের আগে অনিশচয়তায় পড়ে ঈদের আগে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস পাবার বিষয়টি।

সংকট সমাধানের উদ্যোগ নিতে হয় শ্রম মন্ত্রণালয়কে। মঙ্গলবার শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ানের উপস্থিতিতে সচিবালয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বিজিএমইএ নেতা, ইন্ট্রাকো গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ এবং শ্রমিক নেতাদের সমন্বয়ে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, ২৮ এপ্রিল মার্চ মাসের বেতন দেবে ইন্ট্রাকো কর্তৃপক্ষ এবং ৩০ এপ্রিল ঈদ বোসান দেবে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ’র সহসভাপতি নাসির উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘ইন্ট্রাকো নিয়ে যে সংকট হয়েছিল তার সমাধান হয়েছে। আগামী দুই দিনে কারখানাটির শ্রমিকরা বেতন-বোনাস পেয়ে যাবে। আসলে কারখানা দুটির কর্তৃপক্ষ তাদের কারখানা বন্ধ করে দিয়েছেন। এখন কোনো কাজ হচ্ছে না, বিধায় সংকটটি হয়েছিল। বিজিএমইএ এবং শ্রম মন্ত্রণালয়ে হস্তক্ষেপে সে সংকট দূর হয়েছে। মালিক পক্ষ যাতে টাকার সংকুলান করে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দিতে পারে তার জন্য বিজিএমইএ সহযোগিতা করছে।

সামগ্রিকভাবে ঈদের আগে চলতি এপ্রিল মাসের ১৫ দিনের বেতন এবং ঈদ বোনাস দেবার পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে নাসির উদ্দিন বলেন, ‘গত মার্চ মাসের বেতন এখন শতভাগ কারখানায় দেওয়া হয়ে গেছে। ইন্ট্রাকোসহ যে দু-একটিতে সমস্যা মার্চ মাসের বেতন নিয়ে সমস্যা ছিল সেটি মিটে গেছে। চলতি মাসের ১৫ দিনের বেতন ও বোনাস দেওয়ার পরিস্থিতিও বেশ ভালো। এখনো পর্যন্ত কতো শতাংশ কারখানায় বেতন-বোনাস দেওয়া হয়েছে সেটি এখনই সুনির্দৃষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না, তবে দেওয়ার হার অনেক ভালো।

ঈদের আগে এখনো আমরা তিন দিন সময় পাচ্ছি, তার আগেই সব কারখানাতে বেতন-বোনাস দেওয়া হয়ে যাবে। ’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছিলেন, তিন ধাপে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ছুটি দেওয়ার। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাসির উদ্দিন আরো বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা মতো আমরা গার্মেন্ট শিল্পে তিন ধাপেই ছুটি দিচ্ছি। এ ক্ষেত্রে ২৮ এপ্রিল ছুটি দেওয়া হবে কিছু কারখানায়। মূলত যেসব কারখানায় বেতন-বোনাস দেওয়া হয়ে গেছে এবং শিপমেন্ট হয়ে গেছে সেগুলো ছুটি দেওয়া হবে এদিন।

এর পর আরো দুই ধাপে ২৯ ও ৩০ এপ্রিল ছুটি দেওয়া হবে গার্মেন্ট খাতে। সুতারং আশা করছি, ঈদের আগে বেতন-বোনাস এবং ছুটি নিয়ে এবার গার্মেন্টস খাতে কোনো রকম সমস্যা দেখা দেবে না। আমরা সার্বিক বিষয়ে খুবই তত্পর আছি। ’ তবে শ্রমিক নেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের মতে ঈদের আগে আর মাত্র তিন কার্য দিবস থাকলেও এখনো প্রায় অর্ধেক গার্মেন্টস কারখানায় চলতি মাসের ১৫ দিনের বেতন এবং ঈদ বোনাস দেওয়া হয়নি।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password