মানুষ থেকে কুকুর হলেন এক যুবক

মানুষ থেকে কুকুর হলেন এক যুবক

অনেক সময়ে প্লাস্টিক সার্জারি (Plastic Surgery) করে 'সুন্দর' দেখতে হওয়ার চেষ্টার কথাও আমাদের জানা। লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে দেহের অতিরিক্ত মেদ ঝরানো বা রূপচর্চার কথা আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। অনেকে তো পর্দার চরিত্রদের মতো রূপ পাওয়ার জন্যও অনেক টাকা খরচ করে থাকেন। তবে এসব এখন পুরনো।

শখ মেটাতে মানুষ কী কী না করে! সারা শরীরে ট্যাটু! এমনকি ঠোঁটের মুখের নানা রকম অপরাশেন করে বদলে ফেলা। কেউ সুন্দর হতে চান। আবার কেউ হতে সব থেকে বিচ্ছিরি দেখতে! তবে জাপানের এই ব্যক্তি যা করেছেন তা সকলকে হার মানাবে। এমনকি ঠোঁটের মুখের নানা রকম অপরাশেন করে বদলে ফেলা। জাপানের ব্যক্তির আজব স্বপ্ন! কখনও শুনেছেন কোনও মানুষের অনেকদিনের শখ নিজেকে বদলে পশুর রূপ দেবেন?

এবং সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িতও করেছেন। হ্যাঁ। একেবারে ঠিকই পড়ছেন। জাপানের এক ব্যক্তি তাঁর এমনই 'আজব' শখ পূরণ করেছেন প্রায় ২ মিলিয়ন টাকা খরচ করে। অর্থাৎ প্রায় ১২ লক্ষ (Rs 12 lakh) খরচ করে কুকুরের রূপ নিয়েছেন তিনি। নয়া অবতারে ওই ব্যক্তি ট্যুইটারে ছবি শেয়ার করার পর স্তম্ভিত হয়ে যায় নেট দুনিয়া। এক বিখ্যাত এজেন্সি জেপেট, ওই জাপানি ব্যক্তি টোকোকে, কুকুরের এক প্রজাতি 'কলি'তে রূপান্তরিত করেছে। কী বলছেন 'নতুন' টোকো এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, এই লম্বা লোমের কুকুর কখনও কখনও মানুষকে বিভ্রান্ত করতে পারে।

সুতরাং, তিনি কলি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। একইসঙ্গে এটি তাঁর প্রিয় কুকুরের প্রজাতিও। 'আমার পছন্দের পোষ্য চারপেয়েরা। তাদের মধ্যে মনে হল আমার চেহারার কাছাকাছি কোনও বড় প্রাণিই আমার জন্য ঠিক হবে। তাই আমি কুকুরে পরিণত হওয়ার সিদ্ধান্ত নিই।' তাছাড়া, ওই সংস্থা টোকোর জন্য একটি কাস্টোমাইজড 'কলি' পোশাক তৈরি করে যাতে সবকিছু বাস্তব দেখায়। সম্পূর্ণ পোশাকটির দাম প্রায় ২ মিলিয়ন ইয়েন এবং এটি ডিজাইন করতে এজেন্সির ৪০ দিন সময় লেগেছিল।

যখন টোকোকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে তিনি তাঁর অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অবাধে নাড়াচাড়া করতে পারছেন কিনা, তিনি বলেন যে তিনি তা করতে সক্ষম তবে এতে বিধিনিষেধ রয়েছে। তিনি আরও বলেন যে তিনি যদি খুব বেশি নড়াচড়া করেন তবে তাঁকে কুকুরের মতো দেখতে লাগবে না। ওই কস্টিউমে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিও পোস্ট করেন টোকো।

ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওয় টোকোকে দেখা যাচ্ছে কুকুরের মতো সমস্ত আচরণ করতে। সূত্রের খবর, জেপেট বাণিজ্যিক, চলচ্চিত্র এবং অন্যান্য বিনোদনের প্রয়োজনে স্কাল্পচার তৈরি করে। তারা টেলিভিশনের পাশাপাশি জাপানের বিখ্যাত ম্যাসকটের পোশাক তৈরি করে।

মন্তব্যসমূহ (০)