৭ দেশ থেকে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন

৭ দেশ থেকে এলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন

কোভিড-১৯ এর নতুন ধরণ ওমিক্রনের সম্ভাব্য সংক্রমণ ঠেকাতে বিদেশ থেকে আগতদের বিষয়ে কড়াকড়ি আরোপ করেছে বাংলাদেশ। ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়া আফ্রিকার সাতটি দেশ থেকে কেউ ফিরলে তাকে দুই সপ্তাহ নিজ খরচে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, ওই সাত দেশ থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের নিজ খরচে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। বাংলাদেশ সময় শনিবার দুপুর ১২টা থেকে এ নিয়ম কার্যকর হবে বলেও জানায় বেবিচক। এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রায় একই রকম তথ্য জানান। আফ্রিকার ওই সাত দেশ হচ্ছে- লেসোথো, ইসোয়াতিনি, বতসোয়ানা, নামিবিয়া, ঘানা, দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ে।

এসব দেশ থেকে সরাসরি বাংলাদেশে এলে, অথবা গত ১৪ দিনের মধ্যে এসব দেশের কোনোটিতে ভ্রমণ করে থাকলে বাংলাদেশে আসার পর ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের ওই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। কোয়ারেন্টিনের ওই দুই সপ্তাহ সরকার নির্ধারিত কিছু হোটেলে নিজ খরচে থাকতে হবে তাদের। সেজন্য বাংলাদেশের পথে রওনা হওয়ার আগেই হোটেল বুকিং দিতে হবে।

সেই সঙ্গে যাত্রা শুরুর আগের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্তের আরটিপিসিআর পরীক্ষা করিয়ে ‘কোভিডমুক্ত’ সনদ নিয়ে আসতে হবে। তবে ১২ বছরের কম বয়সিদের ক্ষেত্রে এ বাধ্যবাধকতা থাকবে না। বাংলাদেশে আসার পর হোটেলে থাকা অবস্থায় সপ্তম ও চতুর্দশ দিনে করোনাভাইরাস শনাক্তের আরটিপিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। সংক্রমণ ধরা পড়লে তাকে হাসপাতালে আইসোলেশনে রাখা হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থাপিত বিদেশগামীদের করোনাভাইরাস নমুনা পরীক্ষাগার পরিদর্শনে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, কোয়ারেন্টিন থেকে কেউ পালালে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, যাদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হবে, তাদের পাসপোর্ট রেখে দেওয়া হবে। কোনো হোটেল থেকে পালিয়ে গেলে ওই হোটেলকেও জরিমানা করা হবে।

বর্তমানে বিমানবন্দরের টার্মিনাল-২-এ দুই হাজার বর্গফুট জায়গাজুড়ে বিদেশগামীদের করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর পরিবর্তে বিমানবন্দরের গাড়ি পার্কিংয়ের ভবনের দোতলায় ৩৬ হাজার বর্গফুট জায়গায় নমুনা পরীক্ষাগার করা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, এই গবেষণাগার তৈরি হয়ে গেলে বিদেশগামীদের করোনার নমুনা পরীক্ষায় ভোগান্তি কমবে।

এছাড়া বিশ্রামাগার, টয়লেট, খাওয়া-দাওয়ার সুবিধা রাখা হচ্ছে। কাজ শেষ হয়ে গেলে ‘অল্প কিছুদিনের মধ্যেই’ নতুন পরীক্ষাগারটি তা চালু হয়ে যাবে। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে আসা ২৪০ জনকে খুঁজে না পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, তাদের খুঁজে বের করতে স্থানীয় প্রশাসন কাজ করছে।

এটা একমাস আগের কথা, তারপরও আমরা ছাড়ছি না, সবাইকে খুঁজে বের করব। প্রসঙ্গত, ওমিক্রন বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই সংক্রমণ ঠেকাতের সৌদি আরব, ইসরাইল, যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আফ্রিকানদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে কোনো কোনো দেশে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password