নাটোরে তরমুজ ও বাঙ্গির হাট বসেছে

এ বার দেশে তরমুজ ও বাঙ্গির ভালো ফলন হয়েছে। কিন্তু দাম সাধ্যের বাইরে। পাঁচ কিলোমিটার সড়কজুড়ে তরমুজ ও বাঙ্গির বাজার বসেছে। অথচ গরীবরা কিনতে পারছে না তাদের সাধ্যের বাইরে দাম। এতো তরমুজ আর বাঙ্গি বাজারে দাম কিছুতেই কমছে না। 

বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের নয়াবাজার থেকে মানিকপুর পাঁচ কিলোমিটার সড়কজুড়ে তরমুজ ও বাঙ্গির বাজার বসেছে। সড়কের ধারে গাড়ি থামিয়ে তরমুজ-বাঙ্গি কিনছেন দূর-দূরান্তের মানুষ। জমি থেকে সড়কে স্তুপ করতেই খুচরা ক্রেতাদের পাশাপাশি পাইকাররা এসব তরমুজ-বাঙ্গি কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। বিভিন্ন স্থানে রাতেও ট্রাকে তরমুজ-বাঙ্গি লোড করা হচ্ছে। এতে কৃষক এবং পাইকারদের উভয়ের সুবিধা হচ্ছে। আবার সৌখিন ক্রেতারাও সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে টাটকা তরমুজ কিনতে পেরে অনেক খুশি হতে দেখা গেছে। তবে দামের বিচারে কিনতে পারছেন না গরীবরা।

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার এসব সড়ক এখন তরমুজের বাজারে পরিণত হয়েছে। শুধু এই সড়কেই নয়, উপজেলার চরকাদহ, দাদুয়া, উদবাড়িয়া, ধারাবারিষা, সিধুলী, চলনালী, সোনাবাজু, বিন্যাবাড়ি ঝাউপাড়া এলাকায় বাড়ির সামনে কিংবা মোড়ে মোড়ে এসব বাঙ্গি তরমুজের হাট বসেছে। বিভিন্ন এলাকার পাইকাররা এসে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। গতবারের চেয়ে এবার চাহিদা বেশি থাকায় কৃষকরা দাম ভালো পেলেও খরায় ফলন ভালো না হওয়ায় তেমন পোষাচ্ছে না বলে কৃষকরা জানান।

মহাসড়কে দেখা গেছে, সিরাজগঞ্জ থেকে রাজশাহী যাওয়ার পথে আব্দুর রশিদ মাস্টার একটি তরমুজ কিনলেন ৩০০ টাকায়। বনপাড়ার জাহাঙ্গীর নামের আরেক ব্যক্তি কিনলেন ৩৩৫ টাকায়। অপেক্ষাকৃত ছোট আরেকটি তরমুজ একজনকে ১৯০ টাকা দিয়েও কিনতে দেখা গেছে। 

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর থেকে আশা পাইকারী ব্যবসায়ী হাসেম আলী ও চন্দন মিয়া জানান, রমজান মাসে ইফতারিতে তরমুজের ব্যাপক চাহিদা থাকায় এখানে তরমুজ কিনতে এসেছি। ১০০ তরমুজ ১৭০০ টাকায় কেনেন তারা। এলাকায় তারা ৫০ থেকে ৫৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করবেন। এতে তারা লাভবান হচ্ছেন। অপরদিকে, কৃষকের কাছ থেকে তরমুজ পাইকারি কিনলেও হাটেবাজারে বিক্রি হচ্ছে কেজি দরে। ৫৫ টাকা কেজি হওয়ায় সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে গেছে তরমুজের দাম। তাই ইফতারিতে ইচ্ছা থাকলেও অভাবী মানুষরা তরমুজ কিনে খেতে পারছেন না।

কৃষক আব্দুল লতিফ, শাহিন হোসেন এবং সোনাবাজু গ্রামের কৃষক মোতাহার জানান, রসূনের গাছ বড় হওয়ার পর গাছের ফাঁকে ফাঁকে বাঙ্গি, তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার বীজ লাগাতে হয়। এ ফসলের জন্য বাড়তি সার ও কীটনাশক লাগে না। এ বছর বাঙ্গি ও তরমুজের ফলন ভালো হয়েছে। বাঙ্গি তুলতে শ্রমিকদের ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত মজুরি দিতে হচ্ছে। তবে রমজান মাসে বাজারে এসব ফলের চাহিদা থাকায় দামও ভালো পাচ্ছি। তাতে রসূনের চাষে লোকসান হলেও এসব সাথী ফসলে আমরা লাভবান হচ্ছি।

উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, এ বছর গুরুদাসপুরে বাঙ্গি ৭২০ হেক্টর, তরমুজ ৫৫৫ হেক্টর ও মিষ্টি কুমড়া ২৫ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে। খরায় ফসলের ফলন ভালো হওয়ায় বাঙ্গি ২২ হাজার মেট্রিক টন, তরমুজ ২৩ হাজার মেট্রিক টন ও মিষ্টি কুমড়া ১৭৫ মেট্রিক টন উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন