চট্টগ্রামের জয়ের রথ থামাতে পারলো না

চট্টগ্রামের জয়ের রথ থামাতে পারলো না তামিমের বরিশাল। ফরচুন বরিশালকে ১০ রানে হারিয়েছে মিঠুনের গাজীগ্রুপ চট্টগ্রাম।রিয়াদ, মুশফিক, তামিম এই সুপারস্টারের নামের পাশে তরুণ অধিনায়ক মিঠুনের নামটা বেশ বেমানান। তবে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ ক্রিকেটে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে তার দল। টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই অসাধারণ ক্রিকেট খেলছে চট্টগ্রাম।

অধিনায়ক ও কোচের পরিকল্পনায় মাঠে নেমে বাস্তবে রূপ দিচ্ছেন লিটন-সৌম্য-মোস্তাফিজরা। তাইতো আজকের ম্যাচেও কম পুঁজি নিয়ে তামিমদের বরিশালকে ধরিয়ে দিয়েছে মোস্তাফিজদের চট্টগ্রাম।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭ উইকেটে ১৫১ রান তোলে মিঠুনরা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ইয়াংস্টার শরিফুল ও মোস্তাফিজের দারুণ বোলিংয়ে ২০ ওভার শেষে ৮ উইকেটে ১৪৮ রানেই থেমে যায় বরিশালের ইনিংস। ফলে টানা তিন ম্যাচ জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রয়েছে সালাউদ্দিনের শীর্ষরা। এই ম্যাচে বরিশালের ব্যাটসম্যানরা বরাবরের মতো তেমন কোনো পারফরমেন্স করতে পারেনি। অধিনায়ক তামিম ইকবাল গত ম্যাচের ধারা ধরে রাখতে পারেননি। ৩২ বলে তামিম করেছেন ৩২ আর আফিফের সংগ্রহ ২২ বলে ২৪ রান।

এদিকে, টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করলেও সেটাকে ম্যাচের শেষ পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারেনি মিঠুনদের দল। ২২ রানে দলের ওপেনার সৌম্য সরকার ব্যক্তিগত ৫ রানে ফিরে গেলে দলের হাল ধরেন লিটন দাস ও অধিনায়ক মিঠুন। ব্যক্তিগত ১৭ রানে সাজঘরে ফেরেন মিঠুন। আর ৩৫ রানে মাঠ ছাড়েন চট্টগ্রামের ওপেনার লিটন দাস। এরপর স্কোরবোর্ডে ২৬ ও ২৮ রান যোগ করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন শামসুর রহমান শুভ ও মোসাদ্দেক হোসেন।জিয়াউর রহমান ব্যক্তিগত ২ রানে ফিরে গেলেও শেষদিকে ঝড় তোলেন সৈকত আলী। ১১ বলে ১ চার ও ৩ ছয়ে ২৭ রান করে রান আউট হন ইনিংসের শেষ বলে। আর স্কোরবোর্ডে রান জড়ো হয় ৭ উইকেটে ১৫১।

বরিশালের পক্ষে ৪ ওভারে ৪২ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন আবু জায়েদ। আর সুমন খান, তাসকিন আহমেদ, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও মেহেদী হাসান মিরাজ নিয়েছেন একটি করে উইকেট।
স্কোরবোর্ড:
গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম: ১৫১-৭, ২০ ওভার (লিটন ৩৫, সৈকত ২৭, মোসাদ্দেক ২৮, শামসুর ২৬, রাহি ২/৪২, রাব্বি ১/২৩, মিরাজ ১/২৫)
ফরচুন বরিশাল: ১৪১-৮, ২০ ওভার (তামিম ৩২, আফিফ ২৪, সুমন ১৫*, শরিফুল ৩/২৭, মোস্তাফিজ ৩/২৩)
ফলাফল চট্টগ্রাম ১০ রানে জয়ী

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন