বিশ্ব মিডিয়ায় বাংলাদেশে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাওয়ের খবর

হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে অবমাননার প্রতিবাদে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রোর মহানবীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্যারিসের বিরুদ্ধে সরব হয় দেশটির নাগরিকরা।

আজ মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম আনাদলু এজেন্সিতে ‘ফ্রান্স বয়কটের আন্দোলন বাংলাদেশে গতি পেয়েছে’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। অপরদিকে, ফ্রান্সের সংবাদমাধ্যম ফ্রান্স২৪ শিরোনাম- ‘১০ হাজারের বেশি বিক্ষোভকারী বিশ্বনবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের প্রতিবাদে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়েছে’। ‘হাজার হাজার বিক্ষোভকারী বাংলাদেশে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়েছে’- শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

২০১৫ সালে প্রথম ফ্রান্সের শার্লি হেবদোতে ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশ করা হয়। ফরাসী শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটির হাত ধরে এটি আবার আলোচনায় আসে। হত্যার শিকার ওই শিক্ষক ক্লাসরুমে নবীজির ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করলে গত সপ্তাহে এক মুসলিম তরুণের হাতে তিনি খুন হন। পরে যদিও পুলিশের গুলিতে ওই তরুণ নিহত হন।

গত বুধবার (২১ অক্টোবর) খুন হওয়া ফরাসি শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটিকে সম্মান জানাতে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ম্যাক্রোঁ বলেন, ইসলাম ধর্ম ও বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদকে (সা.) নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন বন্ধ করা হবে না। এরপরই ফ্রান্সের মুসলিমরা ম্যাঁক্রোর বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন, তাদের ধর্মকে দমন করা ও ইসলামফোবিয়াকে বৈধতা দিতে চেষ্টা করছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।ম্যাঁক্রোর এমন বিতর্কিত মন্তব্যের পরই তুরস্ক ও পাকিস্তানসহ বেশ কয়েকটি মুসলিম দেশ নিন্দা জানিয়েছে। এদিকে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের মানসিক স্বাস্থ্যের চিকিৎসা দরকার বলেও মন্তব্য করেছেন।

তুর্কির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম আনাদলু’র প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার বাংলাদেশে ১০ হাজারের বেশি বিক্ষোভকারী ঢাকায় ফ্রান্সের দূতাবাসের দিকে সংরক্ষিত রেজিস্টারে কড়া মন্তব্য জানাতে যাত্রা শুরু করে। এ সময় ফ্রান্সের সুগন্ধি ও কসমেটিকসের বড় একটি বাজার বাংলাদেশ হওয়ায় সবাইকে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানানো হয়। এর আগে বক্তারা রবিবার (২৫ অক্টোবর) ঢাকায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টকে তার বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইতে বলা হয়। আন্দোলনকারীরা ঢাকায় নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে আহ্বান জানান। 

আলজাজিরা’র খবরে বলা হয়েছে, ঢাকায় আন্দোলনকারীরা ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাঁক্রোর প্রতিকৃতি তৈরি করে তাতে আগুন লাগিয়ে দিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে।ফ্রান্স২৪ বলছে, ৪০ হাজার লোক বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেছে বলে পুলিশের ধারণা। ঢাকায় ফ্রান্সের দূতাবাস অভিমুখে যাওয়ার সময় তাদের আটকায় পুলিশ। কোনো ধরনের সহিংসতা ছাড়াই অন্তত ১০০ পুলিশ কর্মকর্তা সেখানে উপস্থিত থেকে ব্যারিকেড দিয়ে তাদের থামায়। খবরে আরও প্রকাশ করা হয়, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ইসলামি রাজনৈতিক দল ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের ব্যানারে এটি দেশটির বৃহৎ মসজিদ (বায়তুল মুকাররম) থেকে শুরু হয়।

মন্তব্যসমূহ (১)


লগইন করুন


Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password


মন্তব্য করতে নিবন্ধন করুন