করোনা আক্রান্তের মৃতদেহ বহনে ব্যবহার করা হবে সুতির ব্যাগ।

সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কায় করোনা আক্রান্তের দেহ প্লাস্টিকের ব্যাগে মুড়েই সৎকার করা হয়। কিন্তু মৃতদেহ দাহ ও সমাধি দু’ক্ষেত্রেই প্লাস্টিকের ব্যাগ পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক বলে মনে করছেন ভারতীয় পরিবেশবিদরা। শুধু তাই নয়, প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহারের ফলে বৈদ্যুতিক চুল্লিও খারাপ হচ্ছে বলে দাবি। কারণ প্লাসিটিকের ব্যাগে করে দেহ সৎকারের জন্য যখন চুল্লির ভিতরে দেওয়া হচ্ছে, তখন প্লাস্টিকের অংশবিশেষ চুল্লির ভিতরে জমে যাচ্ছে। ফলে খারাপ হয়ে যাচ্ছে চুল্লি। এর ফলে মাঝে মধ্যেই বন্ধ করে দিতে হচ্ছে সৎকার প্রক্রিয়া। সম্প্রতি এই সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে কলকাতা পুরসভাকে। নিমতলা শ্মশানে প্লাস্টিকের অংশবিশেষ জমে বৈদ্যুতিক চুল্লি খারাপ হয়ে যায়। ফলে সৎকারকার্য ব্যাহত হয়। শ্মশানে মৃতদেহের লম্বা লাইন পড়ে যায়। তারপরই কলকাতা পুরসভা স্বাস্থ্য দফতরকে প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহারে আপত্তি জানায়। ওই আবেদনের পর স্বাস্থ্য দফতর ঠিক করে, এ বার থেকে মৃতদেহ সৎকারের জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগ কম ব্যবহার করা হবে।

কলকাতা পুর-প্রশাসকের অন্যতম সদস্য অতীন ঘোষ বলেন, ‘‘মৃতদেহ বহনের জন্য আমরা একটি বিশেষ ধরনের সুতির ব্যাগের অর্ডার দিয়েছি। এটি এখন পরীক্ষামূলক ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এই ব্যাগ স্বাস্থ্য দফতরকেও ব্যবহারের জন্য আবেদন করা হয়েছে। এই ব্যাগ ভুট্টার দানা থেকে তৈরি হয়। এটি ব্যবহার করলে চুল্লির কোনও ক্ষতি হবে না।’’

প্লাস্টিকের ব্যাগ নিয়ে আপত্তি রয়েছে পরিবেশবিদদেরও। তাঁদের মতে, বৈদ্যুতিক চুল্লিতে এমনিতেই বেশি দূষণ হয়। তার উপর প্লাস্টিক পোড়ানো হলে তার মাত্রা আরও বাড়ে। ফলে ক্ষতি হয় পরিবেশের। এ নিয়ে পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত বলেন, ‘‘প্লাস্টিকের ব্যাগে মুড়ে দাহ কিংবা সমাধি উভয় ক্ষেত্রেই পরিবেশের ক্ষতি হয়। দাহের ফলে বায়ুতে কার্বনের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় এবং সমাধির ফলে তা মাটিতে মিশে ভূগর্ভস্থ জলের ক্ষতি করে। উপরন্তু প্লাস্টিক পুরো মাটিতে মেশেও না।’’

মন্তব্যসমূহ (০)


Lost Password