খেলাধুলা

বাংলাদেশকে চাপে রাখতে ভারতের নতুন কৌশল

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রথম দুই হোম ম্যাচের জন্য দুটি ভেন্যু বেছে নিয়েছিল ভারত। এক. ওমানের বিরুদ্ধে ম্যাচটি আসামের গুয়াহাটিতে এবং দুই. বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচটি কলকাতার সল্টলেকের যুব ভারতী ক্রীড়াঙ্গনে।

প্রিয় পাঠক আমাদের পেজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন

গত ৫ সেপ্টেম্বর গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী স্টেডিয়ামে প্রথম হোম ম্যাচে ভারত ২-১ গোলে হেরেছে ওমানের কাছে। এগিয়ে গিয়েও মধ্য প্রাচ্যের দেশের কাছে হার এড়াতে পারেনি ভারতীয়রা। তবে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি দ্বিতীয় ম্যাচে বড় চমক দেখিয়েছে এশিয়া চ্যাম্পিয়ন কাতারকে দোহায় গিয়ে গোলশূন্য রুখে দিয়ে।

পরের ম্যাচটিই তাদের ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। আগামী ১৫ অক্টোবর কলকাতা সল্টলেকের বিবেকানন্দ যুব ভারতী ক্রীড়াঙ্গনে তৃতীয় ম্যাচ খেলতে নামবে ভারত। সেটি হবে বাংলাদেশেরও তৃতীয় ম্যাচ। তার আগে ১০ অক্টোবর বাংলাদেশ নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে কাতারের বিরুদ্ধে ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।

ভারতের সবচেয়ে বড় স্টেডিয়াম যুব ভারতীর দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৮৫ হাজার। এক সময় যা ছিল ১ লাখ ২০ হাজার। কলকাতায় খেলা, প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ। ভারত দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী গ্যালারীভরা দর্শকদেরই কাজে লাগাতে চান প্রতিবেশি দুই দেশের ফুটবল লড়াইয়ে।

আনন্দ বাজার পত্রিকায় দেয়া এক সাক্ষাতকারে ভারতীয় অধিনায়ক বলেছেন, ‘ওই ম্যাচে যুব ভারতী ক্রীড়াঙ্গনের গ্যালারি দর্শকে ভরে ফেলতে হবে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ ম্যাচে স্টেডিয়ামের গ্যালারি না ভরলে আমি অবাক হবো। কারণ, এখানকার মানুষের ফুটবলের প্রতি আবেগ কারো অজানা নয়। কলকাতা থেকে আমার ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু। তাই বাংলার ফুটবলপ্রেমীরা আমার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

কেন সুনীল ছেত্রী গ্যালারিভরা দর্শক দেখতে চান ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচে তার ব্যাখাও দিয়েছেন, ‘বাংলাদেশের ফুটবলাররা মাঠে নেমে যদি দেখে ভারতীয় দলকে সমর্থন করতে স্টেডিয়াম পুরো ভরে গেছে তা হলে ওরা চাপে পড়তে বাধ্য। আমার নিজেরও এই অভিজ্ঞতা হয়েছে। তাই গ্যালারি ভরো, বাংলাদেশকে চাপে রাখো।’

সুনিল ছেত্রি বলেন, ‘তাই খুব ভাল করেই জানি, দুর্গাপুজা শেষ হয়ে গেলেও বাংলায় তখনও উৎসবের আবহ থাকবে। আমি চাই, সবাই তাদের পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে যেন স্টেডিয়ামে আসেন আমাদের উদ্ভুদ্ধ করতে। যেন সাক্ষী থাকেন একঝাঁক ভারতীয় ফুটবলের নতুন প্রজন্মের তারকাদের খেলা দেখার।’

দোহায় কাতারের বিরুদ্ধে স্মরণীয় ড্রয়ের ম্যাচটি খেলতে পারেননি ভারতের অধিনায়ক। অসুস্থ হয়ে পড়ায় স্টেডিয়ামেও যেতে পারেননি সুনীল ছেত্রী। টিম হোটেলে বসে টেলিভিশনেই সতীর্থদের বীরত্ব দেখেছেন তিনি। ১৫ অক্টোবর যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচটি খেলতে তাই মুখিয়ে আছেন সুনীল ছেত্রী, ‘আশা করছি, পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিলে সুস্থ হয়ে উঠব। কাতার ম্যাচের ছন্দ ধরে রাখাই এখন আসল পরীক্ষা।

প্রিয় পাঠক আপনার মতামত জানান

এ বিভাগের আরো খবর

Close
Close