লাইফ স্টাইল

ছেলেদের যে কাজগুলো মেয়েরা গোপনে ভালবাসে

ছেলেদের কোন কোন বিষয়গুলোর উপর মেয়েরা আকৃষ্ট হয় কিংবা নিজের প্রেমিক বা স্বামীর ব্যক্তিত্বের কোন বিষয়গুলো মেয়েরা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে এটা বলা মুশকিল কারণ এক এক জনের পছন্দ এক এক রকম। কিন্তু সম্প্রতি লাইস্টাইল ইভেন্ট গ্রুপ ফেমিয়ানা-র পরিচালিত একটি সমীক্ষার ফলাফলে উঠে এসেছে একটি অদ্ভুত তথ্য। সমীক্ষাটির লক্ষ্য ছিল, পুরুষদের প্রতি মেয়েদের আকর্ষণের কয়েকটি গোপন কেন্দ্রবিন্দুকে আবিষ্কার করা। অর্থাত্‍ এমন কয়েকটি বিষয় চিহ্নিত করা যেগুলি মেয়েরা অপছন্দ করার ভান করে, কিন্তু মনে মনে আসলে সেগুলি পছন্দই করে। ৬৭২৯ জন মহিলাকে প্রশ্ন করার পর সমীক্ষার ফলাফল স্বরূপ সংস্থাটি প্রকাশ করেছে মেয়েদের এমন ২০টি ‘গোপন’ ভাললাগার কথা। সেই তালিকার প্রথম কয়েকটি বিষয় চলুন জেনে নেই –

প্রিয় পাঠক আমাদের পেজে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন

গুছানো
পোশাক-আশাক এবং নিজের লুকের দিকে ভালো নজর এমন পুরুষই নারীর অনেক পছন্দের। আর এসবের জন্য পুরুষ বেশি খরচ করলে নারীরা মুখে মুখে অখুশি ভাব দেখালেও আসলে কিন্তু অই পোষাকে তার স্বামীকে কেমন মানাবে তার ছবি এঁকে ফেলেন।

যুক্তিবাদী
আমি যখন কথা বলব, তুমি চুপ করে থাকবে’ প্রেমিক বা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়ার সময়ে মেয়েরা অনেকেই রেগে গিয়ে এই ধরনের কথা বলেন। কিন্তু ওয়ে মাধ্যমে তিনি চাইছেন তাঁর সঙ্গীটি বরং তর্ক, এবং যুক্তির বিপক্ষে সমস্যা সমাধানের সবচেয়ে কার্যকর উপায় বের করুক। কাজেই সঙ্গীর তর্কশীলতাকে মনে মনে তাঁরা পছন্দই করেন।

বন্ধুদের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখা
স্বামী বা প্রেমিক নিজের বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছে বা ঘুরছে – এমনটা জানতে পারলে মেয়েরা যতই অসন্তোষ প্রকাশ করুন না কেন মনে মনে খুশিই হন। আসলে ছেলেরা একটু সামাজিক হোক অন্য বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা মারুক, সময় কাটাক এটা মেয়েরা ভালই বাসেন। সমাজবিচ্ছিন্ন একলা পুরুষের সঙ্গ তাদের সম্পূর্নই অপছন্দ।

মাথা ঠান্ডা রাখা
অনেক পুরুষ ভাবেন, তর্জন-গর্জনেই বুঝি পৌরুষের প্রকাশ আর ওটাই বুঝি পছন্দ করেন মেয়েরঅ্যা যা একেবারে ভুল। বরং ঝগড়ার মুহূর্তেও, সঙ্গিনীর কুবাক্য শুনেও মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেন যিনি, তিনিই আকর্ষণীয় পুরুষ। আপনার এই শীতলতা নিয়ে আপনার সঙ্গিনী কখনও-সখনও কটাক্ষ করলেও জেনে নিন মনে মনে তিনি আপনার এই স্বভাব পছন্দ করেন।

নিজেকে আড়াল রাখা
ও নিজেকে বুঝতেই দেয় না- কথাটা অভিযোগের সুরে বলা হলেও, নিজের মনের ভাব নিজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখতে পারাটা একজন পুরুষের মানসিক দৃঢ়তার পরিচায়ক বলেই মনে করেন মেয়েরা। আবার তার অর্থ এই নয় যে, নিজের ভাল লাগা বা খারাপ লাগা কোনও কিছুই নিজের সঙ্গিনীর সঙ্গে শেয়ার না করলে তাঁরা খুশি হবেন। খুব অস্থিরতার সময় মধুর একটু নির্ভরতার হাসি দিতে পারা পুরুষটি নারীদের কাছে সব সময়েই অনেক বেশি আকর্ষণীয়। যার হাসি দেখলে কিছুক্ষণের জন্যও অস্থিরতা ভুলে থাকা যায়।

শিশুপ্রীতি
যেসব পুরুষেরা শিশুদের সাথে সময় কাটাতে পছন্দ করেন এবং শিশুরাও তাদের অনেক পছন্দ করেন তারা নারীদের চোখে অনেক বেশি সংসারী। আর নারীরা শেয়ারিং আর কেয়ারিং বিষয়গুলো অনেক মূল্যায়ন করে।

সাহসী
মেয়েদের কাছে সেই সকল পুরুষ অনেক বেশি আকর্ষণীয় যারা চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পারেন। মেয়েরা এতে অনেক বেশি ভরসা এবং আত্মবিশ্বাস খুঁজে পান আবার অনেকের কাছে এই বিষয়টিই অনেক বেশি রোম্যান্টিক।

ক্রিড়া বিষয়ক চ্যানেল দেখা
সারাদিন শুধু খেলা দেখেন এটা দাম্পত্য জীবনে স্বামীর প্রতি স্ত্রীদের চেনা অভিযোগ। আসলে কিন্তু মেয়েরা খেলাধুলো, দৌড়ঝাঁপ ব্যাপারটাকে যথেষ্ট পুরুষালি বলে মনে করেন। আর সেই কারণেই মেয়েদের মধ্যে নামজাদা খেলোয়াড়দের এত জনপ্রিয়তা। নিজের কর্তাটি খেলতে না পারুক, অন্তত খেলা দেখতে ভালবাসে এই ভাবনা মনে মনে প্রশান্তি দেয় অধিকাংশ মহিলাকেই।

সৌজন্যতা
ছোটো ছোটো ভদ্রতামূলক কাজ, যেমন কোথাও গেলে দরজা খুলে ধরা বা রেস্টুরেন্টে গেলে চেয়ার টেনে বসতে দেয়া, রাস্তা পার করে দেয়ার সময় হাত ধরা এই সকল ছোট্ট কাজগুলো মেয়েদের অনেক বেশি আকর্ষণ করে।

সে কোন বিষয়ে আমার পরামর্শই চায় না
স্বামী বা প্রেমিক সম্পর্কে চিরচেনা অভিযোগ। কিন্তু আদপে অন্য কারোর পরামর্শ ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপযুক্ত মানসিক দৃঢ়তা একজন পুরুষের মধ্যে বেশীরভাগ মেয়েরা পছন্দই করেন।

নিরাপত্তা
সব সময় প্রেমিকা বা স্ত্রীর খোঁজ খবর নেয়া পুরুষকে নারীদের অনেক বেশি পছন্দ করতে দেখা যায়। বার বার খোঁজ নেয়ার জন্য প্রেমিকা বা স্ত্রী যতই বিরক্তির ভাব দেখাক তিনি ঠিকি বুঝে নেন তার সঙ্গী কত টুকু তার বিষয়ে ভাবে। আর এটা কোন নারী অপছন্দ করবে!?

মান ভাঙ্গানো
বিষয়টি ছেলেদের পছন্দ না হলেও এটি সত্যি যে, নারীরা সেই সকল পুরুষদের অনেক বেশি পছন্দ করেন যখন নারীটি কোনো কারণে রেগে গেলে বা অভিমান করলে যারা ক্ষেপে যান না বরং নারীর মুড ঠিক করার জন্য কাজ করেন।

প্রিয় পাঠক আপনার মতামত জানান

এ বিভাগের আরো খবর

Close
Close